নিউইয়র্কে পর্যায়ক্রমে লকডাউন তুলে নেয়া হবে

0
34

আমেরিকার নিউইয়র্কে সবচেয়ে বেশি মানুষ করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন এবং মৃত্যুবরণ করেছেন।

শহরটি এখন লকডাউন অবস্থায় আছে। ২৭ এপ্রিল গভর্নর কুমো এক প্রেস ব্রিফিংয়ে বলেছেন- ১৫ মের পর থেকে নিউইয়র্কে পর্যায়ক্রমে ব্যবসা–বাণিজ্য খুলে দেওয়া হবে।

প্রথম পর্যায়ে নির্মাণ কোম্পানি ও বিভিন্ন পণ্য তৈরির কারখানাগুলো খুলবে। করোনায় নতুন আক্রান্ত, হাসপাতালে ভর্তি, ইনটিউবেশন, মৃত্যু, এসবের সংখ্যা টানা ১৪ দিন থেকে নিম্নমুখী।

তিনি বলেন, প্রথম নিউইয়র্ক নগরের বাইরের কনস্ট্রাকশন বা নির্মাণ কোম্পানিগুলো এবং কিছু পণ্য তৈরি কারখানা খুলে দেওয়া হবে।
গভর্নর বলেন, নিউইয়র্ক অঞ্চলের অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড খুলে দেওয়ার সম্ভাবনা তখনই হয়, যখন দেখা গেছে করোনাভাইরাস সম্পর্কিত দুইটি সংখ্যা কমিয়ে আসা অব্যাহত থাকে। এর একটি হচ্ছে করোনা আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তির সংখ্যা। অন্যটি কোভিড-১৯–এ মৃত্যুর সংখ্যা।

কুমো বলেন, রোগ নিয়ন্ত্রণ কেন্দ্র সিডিসির পরামর্শ হচ্ছে একটি অঞ্চলের হাসপাতালে করোনা রোগী ভর্তির সংখ্যা যদি ১৪ দিন ক্রমশ নিম্নমুখী থাকে, তাহলে সে শহর বা নগর নিরাপত্তা নিশ্চিত হওয়ার শর্তে তিন ধাপে খুলে দেওয়ার পরিকল্পনা করা যায়।

গভর্নর বলেন, বর্তমানে ভাইরাস সংক্রমণের হার ০.৮ শতাংশ। অর্থাৎ একজন কোভিড-১৯ রোগী গড়ে একজনের চেয়ে কম মানুষকে আক্রান্ত করতে পারে।

তিনি বলেন, একেকটি মৃত্যু মানে একেকটি পরিবারে ধ্বংস নেমে আসা। তবে কুমো মনে করিয়ে দেন, এক মাস আগের অবস্থা অনেক বেশি ভয়াবহ ছিল।

গভর্নর বলেন, ৩১ মার্চের পর থেকে নিউইয়র্ক অঙ্গরাজ্যে সবচেয়ে কম মৃত্যু হয়েছে ২৬ এপ্রিল। এখনো যেহেতু প্রতিদিন নতুন হাজারো করোনা পজিটিভ রোগী পাওয়া যাচ্ছে, সেহেতু আমাদের রি–ওপেনের বিষয়টি সতর্কতার সঙ্গে দেখতেই হবে।

২৬ এপ্রিল নিউইয়র্কে কোভিড-১৯ আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ১ হাজার ৮৭ জন ভর্তির তথ্য পাওয়া যায়। অঙ্গরাজ্যের করোনায় মৃতের সংখ্যা সেদিন ছিল ৩৬৭ জন।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে