মোদির জন্মদিনে ভারতে ‘বেকারত্ব দিবস’ পালন!

0
15

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির ৭০তম জন্মদিন ছিল গতকাল বৃহস্পতিবার। ক্ষমতাসীন বিজেপি, সেলিব্রেটি ও বিভিন্ন মহল মোদিকে শুভেচ্ছা জানালেও দেশটির আমজনতা দিনটিকে ‘বেকারত্ব দিবস’ হিসেবে পালন করেছে।

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির ৭০তম জন্মদিন ছিল গতকাল বৃহস্পতিবার। ক্ষমতাসীন বিজেপি, সেলিব্রেটি ও বিভিন্ন মহল মোদিকে শুভেচ্ছা জানালেও দেশটির আমজনতা দিনটিকে ‘বেকারত্ব দিবস’ হিসেবে পালন করেছে।

এদিন #ন্যাশনালআনএমপ্লয়মেন্টডে নামে টুইটারে একটি হ্যাশট্যাগ চালু করা হয়। ভারতের তরুণরা সেখানে দাবি তুলেন— ‘চাকরি চাই। বেকারত্ব থেকে মুক্তি পেতে অর্থনীতির উন্নতি চাই। চাই সীমান্তে নিরাপত্তা।’

এছাড়া কৃষক আত্মহত্যা ও শ্রমিকদের আয়ের নিরাপত্তার দাবিতে দিনভর টুইট হয় ওই সামাজিকমাধ্যমে।

ওই হ্যাশট্যাগে এত যুবক টুইট করে সরকারের সমালোচনা করেছেন, তাতে চিন্তায় খোদ বিজেপি-ও।

অপরদিকে #হ্যাপিবার্থডেমোদি নামেও একটি হ্যাশট্যাগ চালু করে ভারতের প্রধানমন্ত্রীকে জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানানো হয়।

তবে দিনের শেষে সংখ্যার বিচারে #হ্যাপিবার্থডেমোদী-কে বড় ব্যবধানে হারিয়ে দেয় #ন্যাশনালআনপ্লয়মেন্টডে।

এ নিয়ে বিরোধী দল কংগ্রেসের বক্তব্য— যুব সমাজ বিশ্বাস হারাচ্ছে এই সরকারের থেকে, তা স্পষ্ট।

জন্মদিন উপলক্ষে মোদিকে অভিনন্দন জানিয়েছেন সংসদ সদস্যা। আগামী এক সপ্তাহ ধরে দেশটির বিভিন্ন প্রান্তে রক্তদান শিবির, পরিচ্ছন্ন অভিযান, দুঃস্থদের খাবার খাওয়ানোর কর্মসূচি নেয়া হয়েছে।

নেতার জন্মদিন উপলক্ষে ‘লর্ড অব দ্য রেকর্ডস’ বলে একটি বই প্রকাশ করেন সভাপতি জে পি নড্ডা।

দেশটির ক্রিকেটার বিরাট কোহলি, অভিনেতা অমিতাভ বচ্চন, শাহরুখ, সালমান ও আমির খানসহ বিভিন্ন তারকা মোদিকে অভিনন্দন জানিয়েছে।

তবে পুরো উদযাপনে চোনা ফেলে দেয় টুইটারের #ন্যাশনালআনএমপ্লয়মেন্টডে নামের ওই হ্যাশট্যাগ। এই ট্রেন্ডটি ভাইরালও হয়েছে।

এর আগে করোনাকালে নিট পরীক্ষার সিদ্ধান্ত নিয়ে ছাত্র-সমাজের যে অসন্তোষ রয়েছে, তা প্রধানমন্ত্রীর ‘মন কি বাত’ অনুষ্ঠানে ডিজলাইক-এর বহরে স্পষ্ট হয়েছিল।

এরপর তার জন্মদিনেই এই অসন্তোষ চিন্তার বিষয় বলে মনে করছেন অনেকেই। সামনে বিহার ও পশ্চিমবঙ্গের নির্বাচন। বিহারে সরকার ধরে রাখার লড়াইয়ে নামছে এনডিএ।

ঘনিষ্ঠ মহলে বিজেপি নেতারাও স্বীকার করছেন, সরকারের বিরুদ্ধে ক্ষোভ বাড়ছে মানুষের। যদিও প্রকাশ্যে কোনো মন্তব্য করেনি বিজেপি। তবে দলের পক্ষ থেকে ওই হ্যাশট্যাগ প্রচার চালানোর জন্য কংগ্রেসকে দায়ী করা হয়েছে।

পাল্টা জবাবে আজ কংগ্রেস কংগ্রেস মুখপাত্র রণদীপ সুরজেওয়ালা বলেছেন, ‘নিষ্ঠুর শাসকও জন্মদিনে উদার হয়। আর উনি জন্মদিনে কৃষিতে কালা কানুন আনলেন।’

সূত্র: আনন্দবাজার

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে