বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ ফাইনালে মুখোমুখী ফিলিস্তিন-বুরুন্ডি

0
73


বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ ফাইনালে মুখোমুখী ফিলিস্তিন-বুরুন্ডি

বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ আন্তর্জাতিক ফুটবল টুর্নামেন্টের ফাইনালে আফ্রিকার দেশ বুরুন্ডি এবং মধ্যপ্রাচ্যের দেশ ফিলিস্তিন মুখোমুখি হচ্ছে আজ। টুর্নামেন্টের ষষ্ঠ আসরে প্রথমবারের মতো খেলতে এসেই বর্তমান চ্যাম্পিয়ন ফিলিস্তিনের হাসি কেড়ে নিতে চায় বুরুন্ডি।  ‍শুক্রবারের (২৪ জানুয়ারি) ম্যাচ পূর্ববর্তী সংবাদ সম্মেলনে তেমনটাই প্রত্যাশা করেন দেশটির কোচ এবং অধিনায়ক। বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে ম্যাচটির শুরু আজ বিকেল ৪টায়। খেলা শেষে বিজয়ীদের হাতে পুরস্কার তুলে দেবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন উপলক্ষে ঘোষিত মুজিববর্ষের অন্যতম আকর্ষণ বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক গোল্ডকাপ।

এবারের আসরে অংশ নেয়া ৬টি দলের মধ্যে ফিফা র‌্যাঙ্কিংয়ে (১০৬) সবচেয়ে এগিয়ে ফিলিস্তিন। এরপরই আফ্রিকার দেশে বুরুন্ডির অবস্থান ১৫১ নম্বরে। সে হিসেবে র‌্যাঙ্কিংয়ে এগিয়ে থাকা আফ্রো-এশিয়ান দুটি দলের মধ্যেই অনুষ্ঠিত হচ্ছে শিরোপার লড়াই।

সবশেষ ২০১৮ সালে টুর্নামেন্টটির পঞ্চম আসরে তাজিকিস্তানকে টাইব্রেকারে ৪-৩ গোলে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল ফিলিস্তিন। এপর্যন্ত অনুষ্ঠিত ৫টি আসরের মধ্যে ২০১৫ সালে মালয়েশিয়া অনূর্ধ্ব-২৩ দলের বিপক্ষে ৩-২ গোলে হেরে রানার্সআপ হওয়া ছিল বাংলাদেশের সর্বোচ্চ প্রাপ্তি। ২০১৬ ও ২০১৮ সালে শেষ চারে হেরে বিদায় নিয়েছিল লাল-সবুজের প্রতিনিধিরা। ১৯৯৬-৯৭ সালে শুরু হওয়া প্রতিযোগিতায় এখনো শিরোপা অধরাই থেকে গেছে বাংলাদেশের। শক্তির বিচারে আফ্রিকার অধিকাংশ দলই এশিয়ার চেয়ে এগিয়ে। তাদের সম্পর্কে বাংলাদেশের ধারণাও কম। এবারই প্রথম আফ্রিকার কোনো দলের বিপক্ষে খেলে বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপের শিরোপা অধরাই থেকে গেল লাল-সবুজের প্রতিনিধিদের।

চলতি আসরে বর্তমান চ্যাম্পিয়নকে সেমিতে সিসিলসের বিপক্ষে ঘামঝরানো জয় পেতে হয়। ফেভারিটের তকমা নিয়ে ঢাকায় পা রাখা মধ্যপ্রাচ্যের দলটি ওই জয়ের মাধ্যমে মাঠের পারফরমেন্সে তার প্রমাণ দিল।ফিলিস্তিনের কোচ দাগোব মাকরাম এবং অধিনায়ক সামেহ মারাবা উভয়েই ফের চ্যাম্পিয়ন হতে আত্মবিশ্বাসী।

ফিলিস্তিন ২ ম্যাচ জিতে ‘এ’ গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হিসেবে শেষ চারে জায়গা করে নেয়। প্রথম সেমিফাইনালে ফিলিস্তিন ১-০ গোলে হারায় সিসিলসকে। এর আগে বাংলাদেশ ও শ্রীলঙ্কাকে ২-০ গোলের একই ব্যবধানে হারিয়ে ‘এ’ গ্রুপের সেরা হয়ে সেমিফাইনালে ওঠে তারা।

অন্যদিকে বুরুন্ডির প্রধান প্রশিক্ষক জোসলিন বিফুবুসার প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী আক্রমণাত্বক খেলা উপহার দিয়ে ফাইনাল পৌঁছেছে। নিজেদের ঘরের মাঠে বিশেষ করে আফ্রিকান জাতীয় ক্লাব লিগে খেলার অভিজ্ঞতা রয়েছে অধিনায়ক তাম্বউই আনিসিসহ অনেকের। ‘বি’ গ্রুপের চ্যাম্পিয়ন হয়ে সেমিফাইনালে উঠে আসা বুরুন্ডি এ পর্যন্ত সবচেয়ে বেশি গোল (১০টি) দিয়েছে।
মরিশাসকে ৪-১ গোলে উড়িয়ে দেয়ার পর সিশেলসকে ৩-১ ব্যবধানে হারিয়েছিল তারা। এখন পর্যন্ত টুর্নামেন্টে সর্বোচ্চ গোলদাতাও বুরুন্ডির। ২ হ্যাটট্রিকসহ ৭ গোল করেছেন ১৮ বছর বয়সী এই ফরোয়ার্ড শিমিরিমানা জসপিন।

এমএইচ



একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে