দূরে থেকেও সক্রিয় সাকিব

0
31


দূরে থেকেও সক্রিয় সাকিব

করোনা ভাইরাসের কারণে স্থবির হয়ে পড়েছে পুরো বিশ্ব। ব্যতিক্রম নয় বাংলাদেশও। এর প্রভাব পড়েছে স্বাস্থ্য, অর্থনীতি, স্বাভাবিক জীবনযাপন সবকিছুতে। দিনকে দিন আমাদের দেশে বৃদ্ধি পাচ্ছে এর প্রভাব। আর দেশের এমন ক্রান্তিলগ্নে বসে থাকতে পারেননি বিশ্বের সাবেক নম্বর ওয়ান অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। তিনি এগিয়ে এসেছেন সাধারণ মানুষকে সাহায্য করার জন্য। সাকিব আল হাসান বর্তমানে রয়েছেন বাংলাদেশ থেকে হাজার মাইল দূরের দেশ যুক্তরাষ্ট্রে। কিন্তু হাজার মাইল দূরে থেকেই দেশের মানুষের সাহয্যে সক্রিয় রয়েছেন তিনি।

কয়েকদিন আগে নিজের ফেসবুক অ্যাকাউন্টে তিনি ঘোষণা দেন অসহায় ও দুস্থ মানুষদের সহায়তায় একটি ফাউন্ডেশন গঠন করবেন তিনি। কথামতো সাকিব আল হাসান ফাউন্ডেশন গঠন করেন। আর গত ২ এপ্রিল তিনি ঘোষণা করেন তার ফাউন্ডেশন থেকে ২০ লাখ টাকা অনুদান করার ব্যাপারটি। নিজের ভেরিফাইড ফেসবুক পেইজে ব্যাপারটি জানান তিনি। সাকিব বলেন, ‘আমি খুবই গর্বের সঙ্গে আপনাদের জানাচ্ছি যে, কনফিডেন্স গ্রুপ সাকিব আল হাসান ফাউন্ডেশনের সঙ্গে এক হয়ে সর্বমোট ২০ লাখ টাকার একটি ফান্ড গঠনে সহায়তা করেছে। এই ফান্ড থেকে প্রাপ্ত অর্থ দিয়ে বেশ কিছু স্বনামধন্য হাসপাতাল ও মেডিকেল ইনস্টিটিউটকে টেস্টিং কিটের ব্যবস্থা করে দেয়া হবে।’

তিনি আরো লিখেন, ‘আমি কনফিডেন্স গ্রুপের সঙ্গে একজোট হয়ে মানুষের জীবনে পরিবর্তন আনার লক্ষ্যে আরো কাজ করার ইচ্ছা প্রকাশ করছি।’

সাকিব আল হাসান যে ফাউন্ডেশনটি তৈরি করেছেন তা শুধুমাত্র করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত মানুষদের সহায়তায়ই করবে না। পরবর্তী সময়ে সব রকম সামাজিক ও অর্থনৈতিক কাজে অংশ নেবে। এ ব্যপারে সাকিব বলেন, ‘এই ফাউন্ডেশনে কাজ হবে মানুষকে সাহায্য করা। এই সংগঠনটি বাংলাদেশের সব মানুষের নিরাপদ ও উন্নত জীবন গড়ে তুলতে নিবেদিতভাবে কাজ করবে।’

তবে এজন্য সবার সহায়তা চেয়েছেন তিনি। কারণ তার মতে একা কিছু করার চেয়ে দলবদ্ধভাবে করলে তাতে সাফল্য পাওয়া যায়। সাকিব বলেন, ‘একসঙ্গে আমরা যে কোনো কিছুকে কাটিয়ে উঠতে পারি। আসুন সবাই মিলে দল হিসেবে কাজ করি। আমাদের কণ্ঠ ও হাতকে কাজে লাগিয়ে বাংলাদেশকে রক্ষা করতে পারি। আমরা এক হলেই আমরা সব কিছুকে জয় করতে পারব।’

এছাড়া সুবিধাবঞ্চিত মানুষের করোনা ভাইরাস মোকাবিলার জন্য সহায়তা তহবিল সংগ্রহে নেমেছে সাকিব আল হাসান ফাউন্ডেশন। দেশ-বিদেশের বিত্তবান ও সংস্থা থেকে অর্থ সংগ্রহ করে তুলে দেয়া হবে দেশের দরিদ্র মানুষের হাতে। এই ফাউন্ডেশনের অর্জিত অর্থ সুবিধাবঞ্চিত মানুষের হাতে পৌঁছে দেয়ার দায়িত্ব নিয়েছে মিশন সেইভ বাংলাদেশ নামের একটি প্রতিষ্ঠান। এরই মধ্যে ২ হাজার সুবিধাবঞ্চিত পরিবারকে সাহায্য করা হয়েছে এই প্রকল্পটির মাধ্যমে। ফাউন্ডেশনের পক্ষ থেকে জানানো হয়, সাহায্যের পরিমাণ বাড়াতে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেয়া হচ্ছে। করোনা ভাইরাসের প্রকোপে দুর্বল হয়ে পড়েছে বিশ্ব অর্থনীতি। সে কারণে সবচেয়ে বেশি বিপাকে পড়েছে স্বল্প আয়ের সুবিধাবঞ্চিত মানুষ।

এদিকে এর আগে করোনা ভাইরাসের মধ্যেই নিজের স্ত্রী সন্তানদের সঙ্গে যোগ দেয়ার জন্য যুক্তরাষ্ট্রে যান সাকিব আল হাসান। তবে যেহেতু করোনা ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার পর নিয়ম বেঁধে দেয়া হয় যেই এক দেশ থেকে অন্য দেশে যাবে তাকে কমপক্ষে ১৪ দিন নিজেকে আলাদা রাখতে হবে। তাই বাংলাদেশ থেকে গিয়েই তিনি স্ত্রী শিশির ও ছোট্ট মেয়ের সঙ্গে দেখা করেননি। যুক্তরাষ্ট্রে পৌঁছানোর পর তিনি গিয়ে উঠেন একটি হোটেলে। সেখানে তিনি ১৪ দিন থাকার পর তবেই পরিবারের সঙ্গে মিলিত হন। আর হোটেলে থাকাকালীন তিনি ভিডিও বার্তার মাধ্যমে তার সমর্থকদের আপডেট দিতে থাকেন। সবার প্রথমে যে বার্তাগুলো আসে তা হলো সবাইকে তিনি করোনা সতর্ক থাকতে বলেন। সতর্কতার অংশ হিসেবে তিনি ঘরে থাকার পরামর্শ দেন। এরপরই আস্তে আস্তে তিনি তার ফাউন্ডেশন তৈরি ও তা থেকে মানুষকে সহায়তা করার ঘোষণা দেন।

সাকিব আল হাসান শুধুমাত্র বাংলাদেশের গর্ব নয় পুরো ক্রিকেট বিশ্বের গর্ব। বিশ্বের একমাত্র ক্রিকেটার হিসেবে তিনি ওয়ানডে ও টেস্ট ক্রিকেটের এক নম্বর অলরাউন্ডার ক্রিকেটার হয়েছিলেন। ক্রিকেট খেলে তিনি বাংলাদেশকে গর্ব এনে দিয়েছেন। এনে দিয়েছেন আনন্দ করার উপলক্ষ। যখন বাংলাদেশ ও সাধারণ জনগণ যাচ্ছে চরম অনিশ্চয়তার মধ্য দিয়ে। ঠিক তখনই তিনি দেশের দুস্থ মানুষদের সাহায্য করার জন্য এগিয়ে এসেছেন। আর এজনই সাকিব আল হাসানকে অনেকে ভালোবেসে ডাকেন নম্বর ওয়ান সাকিব আল হাসান।

পিআর



একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে