সারাদেশে ৮০ স্টেডিয়াম প্রস্তুত

0
31


সারাদেশে ৮০ স্টেডিয়াম প্রস্তুত

চীনের উহান রাজ্য থেকে করোনা ভাইরাস এখন বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়েছে। রবিবার পর্যন্ত আক্রান্তের সংখ্যা সাড়ে ১২ লাখ ছাড়িয়েছে। ৬৪ হাজারের ওপরে মানুষের মৃত্যু হয়েছে। বাংলাদেশে এখনো এই ভাইরাসের সংক্রমণ অতটা প্রকট আকারে দেখা না গেলেও জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা বলছেন, দেশে পরীক্ষার হার কম। এ কারণে সংক্রমণের হারও কম। গত দুদিনে পরীক্ষার পরিধি বৃদ্ধির পর আক্রান্তের সংখ্যাও বাড়তে শুরু করেছে। এই পরিধি আরো বাড়ানো হলে আক্রান্ত ব্যক্তি শনাক্ত আরো বাড়বে। পরীক্ষার মাধ্যমে যত বেশি আক্রান্ত ব্যক্তি শনাক্ত করা যাবে, তত বেশি পদক্ষেপ গ্রহণ করে এই রোগ প্রতিরোধ করা সম্ভব হবে।

করোনা ভাইরাসের থাবায় বিপর্যস্ত পুরো বিশ্ব। ভাইরাস আক্রান্ত রোগীর চাপে কোণঠাসা বিশ্বের বিভিন্ন দেশের হাসপাতালগুলো। করোনা আক্রান্তদের সঙ্গে অন্য রোগীদের একত্রে চিকিৎসা করালে তাদের প্রাণ সংশয়ের আশঙ্কা রয়েছে। ফলে ভাইরাস সংক্রমিতদের জন্য পৃথক হাসপাতাল বানাতে হচ্ছে। অনেক দেশের বড় বড় স্টেডিয়ামগুলো এখন অস্থায়ী হাসপাতালে পরিণত হয়েছে। ছোট-বড় আরো বহু স্টেডিয়াম হাসপাতালে রূপান্তরিত হওয়ার পথে।

এ তালিকায় রয়েছে ব্রাজিলের বিশ্ব খ্যাত মারাকানা ফুটবল স্টেডিয়াম, সাও পাওলো স্টেডিয়াম, বিশ্বসেরা ক্রিকেট স্টেডিয়াম লর্ডস, ভারতের জওহরলাল নেহরু ও রাজিব গান্ধীর মতো বড় বড় স্টেডিয়াম। করোনা ভাইরাস মহামারির ঝুঁকিতে আছে ফুটবলে পাঁচবারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন ব্রাজিল।
বাংলাদেশের সামনে আরো ভয়ঙ্কর দিন আসছে। দেশজুড়ে করোনার সুনামি বয়ে যেতে পারে। এখন থেকে মানুষকে ঘরে রাখা না গেলে আগামী দিনগুলোতে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করা কঠিন হবে বলে সতর্ক করে দিয়েছেন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকরা। ভোরের কাগজের সঙ্গে একান্ত সাক্ষাৎকারে যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী মো. জাহিদ আহসান রাসেল বলেছেন,

সরকারের গৃহীত সময়োপযোগী পদক্ষেপের কারণে বাংলাদেশে করোনা ভাইরাস মহামারি রূপ ধারণ করেনি এখনো। তবে আমাদের আত্মতুষ্টিতে ভোগে বসে থাকলে চলবে না। আমাদের প্রস্তুত থাকতে হবে যে কোনো পরিস্থিতির মোকাবিলায়। আমি মনে করি আমরা যে কোনো পরিস্থিতি মোকাবিলা করতে প্রস্তুত রয়েছি। করোনা মোকাবিলায় ইতোমধ্যে দেশের সব স্টেডিয়াম বিশেষ করে ইনডোর স্টেডিয়াম ও জিমনেশিয়ামগুলো স্বাস্থ্য বিভাগ ও প্রশাসন প্রয়োজনে অস্থায়ী হাসপাতাল বা আইসোলেশন সেন্টার করতে পারবে। আমরা ইতোমধ্যে ঢাকা মহানগরীসহ দেশের প্রধান স্টেডিয়ামগুলোতে পরিস্থিতি মোকাবিলায় নিয়োজিত আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের আবাসনের ব্যবস্থা করেছি। রাজধানী ঢাকাসহ সারাদেশে স্টেডিয়াম রয়েছে ৮০টি। এছাড়া ১২৫টি উপজেলা মিনি স্টেডিয়াম আছে আমাদের। তাই আমি মনে করি এসব স্থাপনায় চিকিৎসাসেবা কেন্দ্র চালু হলে জনগণের সমস্যা থাকবে না।

গাজীপুর থেকে নির্বাচিত এ সংসদ সদস্য আরো বলেন, সারা বিশ্বের মতো বাংলাদেশেও করোনা ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ছে। এ সময়ে আমাদের সর্বোচ্চ সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে। সচেতন থাকতে হবে। জনসমাগম এড়িয়ে চলতে দেশের জনগণকে সচেতন করতে হবে। কোভিড-১৯ মোকাবিলায় পরীক্ষা ও চিকিৎসার ক্ষেত্রে সার্বিক তৎপরতা আগের চেয়ে বেড়েছে। কিন্তু এটা এমন এক যুদ্ধ, যেখানে জনগণের বিরাট ভূমিকা রয়েছে। তারা নিজেরা সচেতন হয়ে নিজেদের নিয়ন্ত্রণে না রাখলে সরকারের পক্ষে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব হবে না। এই ভাইরাসে আক্রান্ত ব্যক্তিদের চিকিৎসাসেবা নিশ্চিত করার উদ্যোগের পাশাপাশি জরুরি বিষয়টি হচ্ছে এর সংক্রমণ ঠেকানো। আর সামাজিক যোগাযোগ বিচ্ছিন্নতাই হচ্ছে সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়া ঠেকানোর একমাত্র পথ। এসব বিবেচনায় সরকার সাধারণ ছুটি ঘোষণা করেছে এবং জনগণকে ঘরে থাকার আহ্বান জানিয়েছে। সংক্রমণ ঠেকাতে ঘরে থাকার পাশাপাশি এমনকি পরিবারের মধ্যেও বিশেষ সতর্কতা অবলম্বনের প্রয়োজন রয়েছে।

যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী মো. জাহিদ আহসান রাসেল জানান, যে কোনো পরিস্থিতি মোকাবিলায় আমরা প্রস্তুত। রাজধানী ঢাকাসহ দেশে মোট ৮০টি বিভাগীয় এবং জেলা স্টেডিয়াম ও উপজেলা পর্যায়ে ১২৫টি শেখ রাসেল মিনি স্টেডিয়াম রয়েছে। এছাড়া দেশে ২২টি জিমনেশিয়াম, ৭টি ইনডোর স্টেডিয়াম এবং ৫টি মহিলা ক্রীড়া কমপ্লেক্স, ক্রীড়া পল্লী, শুটিং ফেডারেশনের ২০০ রুম, সুইমিং ফেডারেশন, বিভিন্ন ডরমেটরিয়াম, বিভিন্ন ফেডারেশনের স্টেডিয়ামগুলোকে স্বাস্থ্য বিভাগ ও প্রশাসন প্রয়োজনে অস্থায়ী হাসপাতাল বা আইসোলেশন সেন্টার করতে পারবে- এমন সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

স্বল্প সময়ের ঘোষণায় স্টেডিয়ামগুলো কি ব্যবহার উপযোগী করে তোলা সম্ভব? এ প্রশ্নের জবাবে যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী বলেন, এ মুহূর্তে দেশের অধিকাংশ স্টেডিয়ামে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের আবাসনের ব্যবস্থা করা হয়েছে। অন্য প্রতিষ্ঠানগুলোও দ্রুত সময়ের মধ্যে ব্যবহার উপযোগী করে তোলা হবে।

এসআর



একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে