আজ মাঠে ফিরছে ক্রিকেট

0
16


আজ মাঠে ফিরছে ক্রিকেট

ক্রিকেট ব্যাটের সঙ্গে যখন বলের সংযোগ ঘটে তখন তৈরি হয় অসাধারণ এক শব্দ। যে শব্দ ক্রিকেট ভক্তদের কাছে লাগে অমৃতের মতো। তবে করোনার কারণে ক্রিকেটপ্রেমীরা এই শব্দ শুনতে পাচ্ছেন না গত ১৩ মার্চ থেকে। গত ১৩ মার্চ অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ড মুখোমুখি হয়েছিল তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজের প্রথম ম্যাচে। কিন্তু সেই সিরিজটি শুরু হওয়ার আগ থেকেই করোনার থাবা পরতে শুরু করে বিশ্বের উপর। ফলে সিরিজের বাকি দুটি ম্যাচ স্থগিত ঘোষণা করে দেয়া হয়। এরপর একে একে সব ধরনের ক্রিকেট বন্ধ হয়ে গেছে। এরপর থেকে আর মাঠে গড়ায়নি আন্তর্জাতিক একটি ম্যাচও। তবে সকল অপেক্ষার অবসান ঘটিয়ে ১১৭ দিন পর আজ থেকে ফের মাঠে গড়াচ্ছে ক্রিকেট। বাংলাদেশ সময় বিকাল ৪টায় তিন ম্যাচ টেস্ট সিরিজের প্রথম ম্যাচে সাউদাম্পটনের রোজ বোল স্টেডিয়ামে মাঠে নামবে স্বাগতিক ইংল্যান্ড ও ওয়েস্ট ইন্ডিজ।

করোনার মধ্যে যেহেতু খেলা শুরু হচ্ছে তাই অন্য সময়ের চেয়ে আলাদা চিত্র দেখা যাবে এই ম্যাচে। সবচেয়ে বেশি যে চিত্রটি চোখে পরবে তা হলো দর্শকবিহীন মাঠ। যেহেতু করোনা ভাইরাস একজন থেকে অপরজনে ছড়ায় তাই দর্শকের প্রবেশ সম্পূর্ণরূপে নিষিদ্ধ করা হয়েছে। তাছাড়া নিষিদ্ধ করা হয়েছে বলে থুতু লাগানো। ওয়েষ্ট ইন্ডিজ ও ইংল্যান্ডের ম্যাচ থেকেই কার্যকর হবে এই নিয়ম। কোনো বোলার বল ঘষার জন্য থুতু লাগাতে পারবে না। যদি কোনো দল সতর্ক করার পরও দুইবার বলে থুতু লাগায় তাহলে তাহলে তাদের ৫ রান জরিমানা করা হবে। যেহেতু করোনায় যে কেউ যে কোনো সময় আক্রান্ত হয়ে যেতে পারে তাই এই ইংল্যান্ড ও ওয়েস্ট ইন্ডিজের ম্যাচ থেকেই কার্যকর হবে করোনার বদলি খেলোয়াড়ের নিয়ম। ম্যাচ চলাকালীন সময়ে যদি কোনো খেলোয়াড়ের মধ্যে করোনার উপস্বর্গ দেখা যায় তাতেই দলগুলো খেলোয়াড় বদল করতে পারবে। ক্রিকেটের আরেকটি চিরচেনা রূপ হলো বোলাররা যখন উইকেট পায় তখন তারা দলের প্রায় প্রত্যেকের সঙ্গে হাত মেলায়। কিন্তু ইংল্যান্ড ও ওয়েস্ট ইন্ডিজের এই ম্যাচ থেকেই একে অপরের সঙ্গে হাত মেলানোর ব্যপারটি নিষিদ্ধ করা হয়েছে। তবে ইংল্যান্ড ও ওয়েস্ট ইন্ডিজের ম্যাচটিতে মাঠে কোনো দর্শক না থাকলেও টিভিতে বসে যারা খেলা দেখবেন তারা দর্শকদের চিৎকার উল্লাসের শব্দ শুনতে পারবেন। কারণ ম্যাচটিতে দর্শকদের আগের রেকর্ড করা শব্দ বাজানো হবে।

এবার আসা যাক ওয়েস্ট ইন্ডিজ ও ইংল্যান্ড দলের দিকে। জানা যাক কেমন দল নিয়ে নামতে যাচ্ছে তারা। রোজ বোল স্টেডিয়াম হলো পেসারদের জন্য স্বর্গ রাজ্য। ফলে ম্যাচটিতে ইংল্যান্ড ও ওয়েস্ট ইন্ডিজ দুই দলকেই দেখা যাবে পেসারদের নিয়ে দল সাজাতে। সিরিজের প্রথম ম্যাচটিতে ইংল্যান্ড দলের নেতৃত্ব দেবেন বেন স্টোকস। অধিনায়ক হিসেবে এটি হবে তার প্রথম ম্যাচ। অপরদিকে ওয়েস্ট ইন্ডিজ দলের দায়িত্বে থাকছেন জেসন হোল্ডারই।

ইংল্যান্ড ও ওয়েস্ট ইন্ডিজের অতীত টেস্ট পরিসংখ্যান দেখলে দেখা যায় দুদল এখন পর্যন্ত সাদা পোশাকের খেলায় ১৫৭ বার মুখোমুখি হয়েছে। এরমধ্যে ৪৯টি জিতেছে ইংল্যান্ড। ৫৭টিতে জয়ে পেয়েছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। আর বাকি ৫১টি ম্যাচ ড্র হয়েছে। আর শেষ দশবারের লড়াইয়ে সমান ৪টি করে ম্যাচ জিতেছে দুদলই। আর বাকি ২টি ম্যাচ ড্র হয়েছে।

ইংল্যান্ডের মাটিতে ১৯৮৮ সালের পর কোনো টেস্ট সিরিজ জেতেনি ওয়েষ্ট ইন্ডিজ। আর তাই ওয়েস্ট ইন্ডিজ কোচ ফিল সিমন্স জানিয়েছেন ইংল্যান্ডকে তাদের পেস আক্রমন দিয়ে কাবু করে এবার সিরিজ জিততে চান তারা। অন্যদিকে ইংলিশ অধিনায়ক বেন স্টোকস জানিয়েছেন তারা কোনোভাবেই সিরিজ হারতে রাজী নয়। তবে তিনি এও জানিয়েছেন আপাতত সিরিজের বদলে প্রথম ম্যাচটি নিয়েই ভাবছে তার দল। কারণ প্রথম ম্যাচটিতে জিততে পারলে সিরিজ জয় অনেক সহজ হয়ে যাবে। বেন স্টোকস জানিয়েছেন তারাও পরিকল্পনা করছেন পেস আক্রমন দিয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে প্রতিহত করবেন।

এমএইচ



একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে