একদিনেই আম্পায়ারের ৫ ভুল সিদ্ধান্ত

0
16


একদিনেই আম্পায়ারের ৫ ভুল সিদ্ধান্ত

দীর্ঘ বিরতির পর ইংল্যান্ড ও ওয়েস্ট ইন্ডিজের মধ্যে চলমান সাউদাম্পটন টেস্টে ক্যারিবিয়ানদের বিপক্ষে ৫টি ভুল সিদ্ধান্ত দিয়েছেন আম্পায়াররা। ৩ ম্যাচ সিরিজের প্রথম টেস্টের দ্বিতীয় দিনে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে দেয়া ভুল সিদ্ধান্তে অবশ্য রিভিউ নেয়ার পর নিজেদের প্রাপ্যটা ঠিকই পেয়েছেন জেসন হোল্ডারের দল। কিন্তু এমন ভুলের মিছিলে আম্পায়ারিংয়ের মান নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে।

আম্পায়ার হিসেবে মাঠে রিচার্ড কেটেলব্রো এবং রিচার্ড ইলিংওয়ার্থ মাঠে ও থার্ড আম্পায়ার হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন মাইকেল গাফ। করোনাকালীন পরিবর্তিত নিয়ম অনুযায়ী ৩ জনই ইংল্যান্ডের। এর মধ্যে ম্যাচের দ্বিতীয় দিন ২ মূল আম্পায়ার কেটেলব্রো ৩ ও ইলিংওয়ার্থ ২টি ভুল সিদ্ধান্ত দিয়ে আলোচনার জন্ম দিয়েছেন।

দ্বিতীয় দিনে ওয়েস্ট ইন্ডিজের প্রাপ্ত ৯ উইকেটের মধ্যে তিনটিতেই প্রথমে ভুল সিদ্ধান্ত দিয়েছিলেন আম্পায়াররা। ইংল্যান্ডের ইনিংসের ২৬তম ওভারের চতুর্থ বলে ররি বার্নসের বিপক্ষে লেগ বিফোরের জোরালো আবেদন করেন গ্যাব্রিয়েল। কিন্তু সাড়া দেননি আম্পায়ার। পরে রিভিউ নিয়ে ঠিকই সঠিক সিদ্ধান্তটি পায় ক্যারিবীয়রা।

একইভাবে ইনিংসের হোল্ডারের বোলিংয়ে ৩৪তম ওভারে জ্যাক ক্রাওলি এবং ৫৮তম ওভারে জোফরা আর্চারের বিরুদ্ধে লেগ বিফোরের আবেদনে সাড়া দেননি কেটেলব্রো। ২ বারই দারুণ রিভিউ নিয়ে সাফল্য পান ক্যারিবীয় অধিনায়ক। ইংল্যান্ডের ইনিংসে ছিল এই ৩টি ভুল সিদ্ধান্ত।

পরে ওয়েস্ট ইন্ডিজ ব্যাটিং করতে নেমে বৃষ্টিতে খেলা বন্ধ হওয়ার আগে ১৯.৩ ওভারে ১ উইকেট হারিয়ে করেছে ৫৭ রান। এরই মধ্যে ২ বার তারা শিকার হয় ভুল সিদ্ধান্তের। ২ বারই বোলারের নাম জেমস অ্যান্ডারসন, ব্যাটসম্যানের নাম জন ক্যাম্পবেল এবং আম্পায়ারের নাম রিচার্ড ইলিংওয়ার্থ।
ইনিংসের সপ্তম ওভারের ষষ্ঠ ও ত্রয়োদশ ওভারের দ্বিতীয় বলে ক্যাম্পবেলকে লেগ বিফোর আউট দেন ইলিংওয়ার্থ। ২ বারই রিভিউ নিয়ে বেঁচে যান তিনি। তবে ত্রয়োদশ ওভারের শেষ বলে আর ভুল করেননি ইলিংওয়ার্থ। এবারো ক্যাম্পবেলকে আউট দেন তিনি। পরে রিভিউতেও দেখা গেছে, এবার আর ভুল হয়নি আম্পায়ারের।

করোনাকালীন ক্রিকেটে যে ৫টি নিয়মে পরিবর্তন আনা হয়েছে, তার মধ্যে একটি ছিল স্থানীয় অর্থাৎ স্বাগতিক দেশের আম্পায়ার দিয়ে ম্যাচ পরিচালনা। এমন নিয়মের পর অনেকের মনেই প্রশ্ন জেগেছিল, ম্যাচ তাহলে স্বচ্ছ থাকবে তো? কোন আম্পায়ারের নিজ দেশের প্রতি বাড়তি কোনো টান কাজ করবে না তো? আইসিসির এলিট প্যানেলের আম্পায়ারদের নিয়ে এসব প্রশ্নের ঠিক শক্ত ভিত্তি নেই। তবে করোনা বিরতির পর প্রথম ম্যাচেই যেভাবে একের পর এক সিদ্ধান্ত ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে গেল, তা দেখে সন্দেহবাতিক মানুষদের মনে পক্ষপাতিত্বের প্রশ্ন আসাটা খুবই স্বাভাবিক।

এমএইচ



একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে