সহজ জয়ে কোয়ার্টার ফাইনালে বার্সা

0
20


সহজ জয়ে কোয়ার্টার ফাইনালে বার্সা

ক্যাম্প ন্যুতে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ম্যাচ মানে হয় বার্সা জয় পাবে। না হয় ম্যাচটি ড্র হবে। গত ৩৫ ম্যাচে এমন দৃশ্যই দেখা গেছে বার্সার ঘরের মাঠ ন্যু ক্যাম্পে। যেখানে তারা ৩১টি ম্যাচে জয় পেয়েছে। আর ড্র করেছে বাকি ৪টি ম্যাচ। আজ নাপোলির বিপক্ষে এই মৌসুমের রাউন্ড ষোলর দ্বিতীয় লেগের ম্যাচেও এর ব্যতিক্রম হয়নি। শেষ পর্যন্ত ন্যু ক্যাম্পে ৩-১ গোলের জয়ই তুলে নিয়েছে বার্সা। আর এর মাধ্যমে দুই লেগ শেষে ৪-২ গোলের ব্যবধানে কোয়ার্টার ফাইনালের টিকেট বাগিয়ে নিয়েছে মেসিরা।

ম্যাচটিতে দুই দল যে ৪টি গোল করেছে তার সবগুলোই এসেছে প্রথমার্ধে। দ্বিতীয়ার্ধে বার্সা নাপোলি কেউই গোল করতে পারেনি। ম্যাচের ১০ মিনিটের সময় কর্নার কিক থেকে হেড করে গোল করে বার্সাকে এগিয়ে নেন ক্লেমেন্ট লেঙ্গলেট। এরপর ২৩ মিনিটের সময় বলতে গেলে প্রায় একাই চারজনকে কাটিয়ে চোখ জুড়ানো গোল করেন দলীয় অধিনায়ক লিওনেল মেসি। ম্যাচের ৩০ মিনিটের সময় ফের আরেকটি গোল করে ফেলেন তিনি। তবে ডি ইয়ংয়ের বাড়ানো বল রিসিভ করতে গিয়ে বলে হাত লেগে যায় মেসির। ফলে তার গোলটি বাতিল করে দেয়া হয়। এরপর অবশ্য দলের তৃতীয় গোলটিতেও অবদান রাখেন মেসি। আর তা হলো দলকে পেনাল্টি পেতে সহায়তা করেন তিনি। ম্যাচের ৩৯ মিনিটের সময় নাপোলির ডি বক্সের ভেতর বল নিয়ে এগিয়ে যাচ্ছিলেন নাপোলির কুলিবালি। তখন পেছন থেকে বল ছিনিয়ে নেয়ার চেস্টা করেন মেসি। আর তখনই কুলিবালি মেসির পায়ে ভুলবশত লাথি মেরে বসেন। ডি বক্সের ভেতর পায়ে লাথি লাগায় ম্যাচ রেফারি ভিএআরে তা পরীক্ষা করে পেনাল্টির ঘোষণা দেন। আর এই পেনাল্টি থেকে ম্যাচের ৪৬ মিনিটের সময় গোল করেন লুইস সুয়ারেজ।

বার্সা তৃতীয় গোলটি পাওয়ার পরক্ষণেই ইভান রাকিটিচ নাপোলির দ্রিস মার্টিনসকে ডি বক্সের ভেতর ধাক্কা মেরে ফেলে দেন। ফলে নাপোলি পেনাল্টি থেকে গোল করার সুযোগ পায়। আর এই সুযোগটি কাজে লাগান লরেঞ্জো ইনসিগনে। আর এটিই ছিল ম্যাচের শেষ গোল।

অপরদিকে রাউন্ড ষোলর অপর ম্যাচে ইংলিশ ক্লাব চেলসিকে ৪-১ গোলে হারিয়েছে জার্মান জায়ান্ট বায়ার্ন মিউনিখ। প্রথম লেগে তারা চেলসিকে ৩-০ গোলে হারিয়েছিল। ফলে দুই লেগ মিলিয়ে ৭-১ গোলের ব্যবধানে এগিয়ে থেকে কোয়ার্টার ফাইনাল নিশ্চিত করেছে বায়ার্ন। ম্যাচটিতে বায়ার্নের হয়ে জোড়া গোল করেন রবার্ট লেভানদোস্কি। একটি করে গোল করেন ইভান পারিসিক ও কোরেন্টিন তোলিসো। আর চেলসির হয়ে শান্তণাসূচক গোলটি করেন তামি আব্রাহাম।

পিআর



একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে