আন্তঃমন্ত্রণালয় কমিটির সুপারিশে বন্ধ হচ্ছে কারিগরির মেডিকেল টেকনোলজি ও নার্সিং কোর্স

0
153


https://www.newstangail.com/wp-content/uploads/2019/12/Capture-10.jpg

নিউজ টাঙ্গাইল ডেস্ক: কারিগরি শিক্ষাবোর্ডের অধীনে পরিচালিত মেডিকেল টেকনোলজি ও নার্সিং বিষয়ের কোর্সগুলো বন্ধ হয়ে যাচ্ছে । আগামী শিক্ষাবর্ষ থেকে এ সংক্রান্ত সব প্রশিক্ষণ কোর্স স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের অধীনে পরিচালিত হবে। সম্প্রতি জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব রইছ উদ্দিনের নেতৃত্বে গঠিত আন্তঃমন্ত্রণালয় কমিটি এ সুপারিশ করেছে।

কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন- অতিরিক্ত সচিব (কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগ); অতিরিক্ত সচিব (সিপিটি, জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়); অতিরিক্ত সচিব (স্বাস্থ্য শিক্ষা ও পরিবার কল্যাণ বিভাগ); উপসচিব (আইন ও বিচার বিভাগ), চেয়ারম্যান (বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষাবোর্ড); রেজিস্ট্রার (বাংলাদেশ নার্সিং ও মিডওয়াইফারি কাউন্সিল); সচিব (বাংলাদেশ রাষ্ট্রীয় চিকিৎসা অনুষদ)।

সুপারিশে বলা হয়, সুপ্রিমকোর্টের সিভিল পিটিশন লিভ টু আপিল নম্বর ২১৪৩/২০১৬ মামলার নির্দেশনা মোতাবেক মেডিকেল টেকনোলজি এবং নার্সিং সংক্রান্ত সব শিক্ষা কার্যক্রম ‘ওয়ান আমব্রেলা কনসেপ্ট’-এর আওতায় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় কর্তৃক পরিচালিত হবে। কারিগরি শিক্ষাবোর্ডের আওতাভুক্ত মেডিকেল টেকনোলজি এবং নার্সিং কোর্স পরিচালনাকারী প্রতিষ্ঠানগুলোর তালিকা স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে পাঠানোর নির্দেশ দেয়া হয়েছে। সেখানে বলা হয়েছে, তালিকা প্রাপ্তির ৩০ দিনের মধ্যে উক্ত প্রতিষ্ঠানগুলোর অনুমোদন এবং পরবর্তী ৩০ দিনের মধ্যে রাষ্ট্রীয় চিকিৎসা অনুষদ এবং নার্সিং কাউন্সিলে নিবন্ধন/অন্তর্ভুক্তিকরণে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। এছাড়াও কারিগরি শিক্ষাবোর্ড কর্তৃক পরিচালিত মেডিকেল টেকনোলজি এবং নার্সিং কোর্সে নতুন করে ভর্তি ও নিবন্ধন (রেজিস্ট্রেশন) কার্যক্রম বন্ধ রাখতে কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগকে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। সুপারিশে কারিগরি শিক্ষাবোর্ড আইন-২০১৮ সংশোধন করতে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। উক্ত আইনের তফসিল ১ এর ক্রমিক ‘ঞ’ ও ক্রমিক নং ৪ সহ উক্ত তফসিলে উল্লিখিত মেডিকেল টেকনোলজি ও নার্সিং প্রশিক্ষণ কোর্স সংক্রান্ত বিধানাবলি বিলুপ্ত/সংশোধন করে ৩০ দিনের মধ্যে কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগকে প্রয়োজনীয় কার্যক্রম গ্রহণের নির্দেশ দেয়া হয়। আন্তঃমন্ত্রণালয় কমিটি মনে করে, কারিগরি শিক্ষাবোর্ড আইন-২০১৮-এর উল্লিখিত তফসিল সংশোধন করা হলে আদালতের প্রদত্ত রায়ে উল্লিখিত ‘ওয়ান আমব্রেলা কনসেপ্ট’ দ্রুত বাস্তবায়ন হবে।

আন্তঃমন্ত্রণালয়ের সুপারিশগুলো বাস্তবায়নের কার্যক্রম মনিটরিং করতে অতিরিক্ত সচিব (কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগ),  অতিরিক্ত সচিব (স্বাস্থ্য শিক্ষা ও পরিবার কল্যাণ বিভাগ); চেয়ারম্যান (বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষাবোর্ড); রেজিস্ট্রার (বাংলাদেশ নার্সিং ও মিডওয়াইফারি কাউন্সিল); সংশ্লিষ্ট সিনিয়র সহকারী সচিব/উপসচিব (স্বাস্থ্য শিক্ষা ও পরিবার কল্যাণ বিভাগ) এর সমন্বয়ে ৫ সদস্যের একটি মনিটরিং টিম গঠন করা হয়েছে।  এ বিষয়ে স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল কালাম আজাদ  বলেন, উচ্চ আদালতের নির্দেশনা অনুযায়ী আন্তঃমন্ত্রণালয় কমিটি সুপারিশ করেছে। এটি অবশ্যই একটি ভালো সংবাদ। এখন এটি বাস্তবায়নে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে হবে। তিনি বলেন, স্বাস্থ্য অধিদফতর সব কোর্স পরিচালনা করে রোগীদের কথা বিবেচনা করে। কিন্তু কারিগরি বোর্ড কর্তৃক পরিচালিত কোর্সগুলো হয়তো সেরকম ছিল না। তাই ওয়ান আমব্রেলা কনসেপ্ট যত দ্রুত বাস্তবায়িত হবে ততই মঙ্গল।

জানা যায় , ১৯৬২ সাল থেকে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের অধীনে মেডিকেল টেকনোলজি কোর্স পরিচালিত হয়ে আসছে।  ২০০৫ সালে কারিগরি শিক্ষাবোর্ড মেডিকেল টেকনোলজি কোর্স পরিচালনা শুরু করলে জটিলতার সৃষ্টি হয়। এর পাশাপাশি ২০১২ সাল থেকে নার্সিং কোর্সও চালু করে কারিগরি বোর্ড।

সুপ্রিমকোর্টের আপিল বিভাগে লিভ টু আপিল দায়েরকারী বেকার এন্ড প্রাইভেট সার্ভিসেস মেডিকেল টেকনোলজিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি মো. শফিকুল ইসলাম নিউজ টাঙ্গাইলকে বলেন, সর্বোচ্চ আদালতের নির্দেশে ওয়ান আমব্রেলা কনসেপ্ট ৩ বছরেও বাস্তবায়ন না হওয়া অত্যন্ত দুঃখজনক। আন্তঃমন্ত্রণালয় কমিটির সুপারিশগুলো দ্রুত বাস্তবায়নে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে দাবি জানান তিনি।



একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে