দুঃসময়ে এবারের বাজেট সুসময়ের বার্তা বয়ে আনুক

0
22


দুঃসময়ে এবারের বাজেট সুসময়ের বার্তা বয়ে আনুক

সারা পৃথিবীতে এখন দুঃসময়। একদিকে স্বাস্থ্যঝুঁকি, অন্যদিকে অর্থনৈতিক সঙ্কট। করোনাভাইরাসের সংক্রমণ থেকে বাঁচতে ঘরবন্দি মানুষের জীবন-জীবিকার পথ রুদ্ধ। থমকে আছে অর্থনীতির চাকাও। মানুষ অতিক্রম করছে ভয়ানক দুঃসময়। খুব দ্রুত প্রতিষেধক আবিষ্কৃত হলে হয়তো করোনা সংক্রমণের ঝুঁকি কমবে। কিন্তু দীর্ঘ ছয় মাসে পৃথিবীর অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডে যে স্থবিরতা নেমেছে, তা কতদিনে কাটবে এ ধারণা নেই অর্থনীতিবিদদেরও।

এ দুঃসময়ে  ২০২০-২১ অর্থবছরের জন্য ৫ লাখ ৬৮ হাজার কোটি টাকার প্রস্তাবিত বাজেট পেশ করেন অর্থমন্ত্রী।  সংসদে প্রস্তাবিত বাজেটের আলোচনা শেষে অর্থমন্ত্রী ২০২১ সালের ৩০ জুন সমাপ্ত অর্থবছরের কার্যাদি নির্বাহের জন্য সংযুক্ত তহবিল থেকে অর্থ প্রদান ও নির্দিষ্টকরণের কর্তৃত্ব প্রদানের জন্য আনীত বিলটি (নির্দিষ্টকরণ বিল, ২০২০) পাসের প্রস্তাব করলে বিলটি কণ্ঠভোটে পাস হয়।

বাজেট সরকারের এক বছরের আয়-ব্যয়ের আগাম হিসাব। বিভিন্ন খাতে রাষ্ট্রের নাগরিকরা যে সেবা ও উন্নয়ন পেতে চান বা রাষ্ট্র যে সেবা নিশ্চিত করতে চায়, তা বাজেটের মাধ্যমে নির্ধারিত হয়। বাজেটে যে বরাদ্দ দেওয়া হয়, তার ওপর নির্ভর করে দেশের উন্নয়ন কর্মকাণ্ড। শুধু অবকাঠামোগত নয়, সব ধরনের উন্নয়নই বাজেটের ওপর নির্ভরশীল। দেশের শিল্প, বাণিজ্য, শিক্ষা, স্বাস্থ্যসহ সব খাতেই বরাদ্দ থাকে বাজেটে। করোনাভাইরাস সংক্রমণের পর স্বাভাবিকভাবেই বর্তমানে বাজেটে স্বাস্থ্য খাতের বরাদ্দের বিষয়টি সাধারণের আগ্রহের কেন্দ্রে ছিল। সরকার আগামী দিনের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় বর্তমান বাজেটে স্বাস্থ্য খাতকে গুরুত্ব দিয়েছে। এ ছাড়া কৃষি, সামাজিক নিরাপত্তা ও ব্যাপক কর্মসৃজন ও পল্লী উন্নয়নে অগ্রাধিকার দেওয়া হয়। কোভিড-১৯-পরবর্তী অর্থনৈতিক উন্নয়নের ধারা বজায় রাখতে বিভিন্ন আর্থিক ও প্রণোদনামূলক কার্যক্রমের ওপরও জোর দেওয়ার পাশাপাশি এবারের বাজেট সামাজিক সুরক্ষার পরিধি বাড়ানোসহ কর্মহীন হয়ে পড়া মানুষের দিকেও নজর দিয়েছে।

করোনায় ঝুঁকিতে পড়া মানুষকে বাঁচানোর উদ্যোগসহ বিভিন্ন কর্মসূচির কারণে এবারের বাজেট জাতীয় সংসদে উত্থাপিত হবার পরেই প্রশংসিত হয়। এবারের বাজেট যে পরিস্থিতিতে প্রণয়ন ও ঘোষণা হয়, সেরকম দুর্যোগময় পরিস্থিতির শিকার এর আগে আমরা কখনও হইনি। বৈশ্বিক এবং অভ্যন্তরীণ সকল ক্ষেত্রেই সব খাতের অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড প্রায় স্থবির। এই অবস্থা থেকে ফিরতে পাস হওয়া বাজেট ভূমিকা পালন করবে বলে আমরা প্রত্যাশা করি। আমরা মনে করি, বর্তমান বাজেটে মানুষ উপকৃত হবে, উন্নয়নের ধারা অব্যাহত থাকবে। জাতীয় সংসদে নতুন অর্থবছরের জন্য পাস হওয়া বাজেট ভালো কি মন্দ, কতটুকু জনগণের জন্য কল্যাণ বয়ে আনবে সেটি সময়ই বলে দেবে। জনকল্যাণ, দারিদ্র্য বিমোচন, উন্নয়নমুখী, অর্থনৈতিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করা রাষ্ট্রের দায়িত্ব। এক্ষেত্রে সরকার বর্তমান বাজেটের মাধ্যমে রাষ্ট্রের এই দায়িত্ব পালনে সচেষ্ট হবে বলেই আমাদের প্রত্যাশা।

 



একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে