প্রথমবারের মতো হাল্ট প্রাইজ এবার মাভাবিপ্রবিতে

0
8

প্রথমবারের মতো মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (মাভাবিপ্রবি) শুরু হতে যাচ্ছে ” হাল্ট প্রাইজ ” আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতা। ইতিমধ্যে অভূতপূর্ব সাড়া জাগাতে সক্ষম হয়েছে মাভাবিপ্রবি এর শিক্ষার্থীরা । কারণ ২০ সেপ্টেম্বর থেকে ৩০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত রেজিষ্ট্রেশনের সময় নির্ধারণ করা হয়েছিলো যেখানে ১০ দিনেই ৭০ টি টীম রেজিষ্ট্রেশন সম্পন্ন করেছেন।শিক্ষার্থীদের মধ্যে ব্যাপক উৎসাহ ও উদ্দীপনা থাকায় রেজিষ্ট্রেশনের মেয়াদ বাড়িয়ে ১০ ই অক্টোবর পর্যন্ত নির্ধারিত করা হয়েছে।

হাল্ট প্রাইজ হচ্ছে হাল্ট প্রাইজ ফাউন্ডেশন, জাতিসংঘ এবং ক্লিনটন গ্লোবাল ইনিশিয়েটিভ এর অংশীদারিত্মে আয়োজিত বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের জন্য বিশ্ববিখ্যাত সামাজিক, বৈশ্বিক সমস্যা সমাধানমূলক একটি প্রতিযোগিতা। হাল্ট প্রাইজকে শিক্ষার্থীদের নোবেল প্রাইজও বলা হয় । আহমেদ আস্কার ২০১০ সালে হাল্ট ইন্টারন্যাশনাল বিজনেস স্কুলের সহায়তায় হাল্ট প্রাইজ ফাউন্ডেশন প্রতিষ্ঠা করেন। খাদ্য নিরাপত্তা, পানি, শক্তি এবং শিক্ষা এই বিষয়গুলো নিয়ে মুখোমুখি হওয়া বিভিন্ন সমস্যার সমাধান নিয়ে এই প্রতিযোগিতা। যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক প্রেসিডেন্ট বিল ক্লিনটন চ্যালেঞ্জ নির্ধারণ করে প্রতি বছর সেপ্টেম্বরে বিজয়ী ঘোষণা করেন। বিজয়ী দলকে ১ মিলিয়ন ডলার প্রদান করা হয়।

এ বছরের চ্যালেঞ্জ নির্ধারণ করা হয়েছে পরিবেশবান্ধব ব্যবসার উপর । প্রতিযোগীদের এমন একটি বিজনেস আইডিয়া দিতে হবে যা অর্থনৈতিক মুনাফা অর্জনের পাশাপাশি আমাদের পরিবেশের উপর একটি ইতিবাচক প্রভাব বয়ে আনবে যাতে প্রতি ডলার অর্জন পরিবেশের উপর কোনো খারাপ প্রভাব না ফেলে অর্থাৎ যা থেকে কোনো ক্ষতিকর গ্যাস নির্গমন হবে না এবং যার সুবিধা আগামী ১০ বছরের মধ্যে ১০ লক্ষ মানুষের কাছে পৌছাবে । এবারের হাল্ট প্রাইজ প্রতিযোগিতায় মাভাবিপ্রবি অন ক্যাম্পাস প্রোগ্রাম পরিচালনা করবেন হাল্ট প্রাইজের মাভাবিপ্রবি ক্যাম্পাসের পরিচালক ফাতেমা আক্তার লাভলী ।

ফাতেমা আক্তার লাভলী জানান, হাল্ট প্রাইজ অন ক্যাম্পাস প্রতিযোগিতার টীম সিলেকশন চলবে ২০ থেকে ৩০ অক্টোবর পর্যন্ত। যেখানে প্রথম পর্বে ১৫ টি টীম সিলেক্ট করা হবে এবং সেখান থেকে সর্বোচ্চ ভালো ধারণা দেয়া ৩ টি টীম কে নির্বাচন করা হবে। মাভাবিপ্রবি অন ক্যাম্পাস পর্বের বিজয়ী টিম বিশ্বজুড়ে অনুষ্ঠিত ১৫টি আঞ্চলিক পর্বের মধ্যে একটি প্রতিযোগিতায় অংশ নিতে অগ্রসর হবে। অন ক্যাম্পাস ইভেন্টের বিজয়ী দলটি সরাসরি মুম্বাই, কুয়ালালামপুর, সিঙ্গাপুর, দুবাই, বোস্টন, লন্ডন, স্যান-ফ্রান্সিসকো এবং বিশ্বের আরও ২৫ টি শহরের যেকোনো একটি শহরে রিজিওনাল রাউন্ডে মাভাবিপ্রবিকে রিপ্রেজেন্ট করার সুযোগ পাবে।প্রতিটি আয়োজনকারী শহর থেকে একটি বিজয়ী দল গ্রীষ্মকালীন বিজনেস ইনকিউবেটর চলে যাবে। প্রতিযোগিতার চূড়ান্ত পর্ব ২০২০ সালের সেপ্টেম্বরে জাতিসংঘ সদর দপ্তরে অনুষ্ঠিত হবে।

মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদেরকে এই প্রতিযোগিতার আদ্যোপান্ত জানাতে এবং তাদের মধ্যে আগ্রহ সৃষ্টি করার লক্ষ্যে ১ অক্টোবর এনভায়রনমেন্টাল সাইন্স এন্ড রিসোর্স ম্যানেজমেন্ট বিভাগে ইনফো সেশন আয়োজন করা হয়। সেশনের বক্তব্য রাখেন এনভায়রনমেন্টাল সাইন্স এন্ড রিসোর্স ম্যানেজমেন্ট বিভাগের মাননীয় চেয়ারম্যান ড. মীর মোজাম্মেল হক, সম্মানিত শিক্ষক ড. এ. এস. এম সাইফুল্লাহ্ ও ক্রিমিনোলজি এন্ড পুলিশ সাইন্স বিভাগের সম্মানিত শিক্ষক জনাব আওরঙ্গজেব আকন্দ। ইনফো সেশনে বিজনেস কেস কম্পিটিশনের বিভিন্ন শাখা যেমন– মার্কেটিং, স্ট্রাকচার অ্যানালাইসিস, বিজনেস প্ল্যানিং ইত্যাদি বিষয়ে নির্দেশনা দেয়া হয় ।

প্রতিযোগিতাটি তরুণদের মেধা ও মনন বিকাশ করে এক নতুন দিগন্তের উন্মোচন করবে। হয়ত এবারের আয়োজনের মধ্য দিয়েই বের হয়ে আসবে এমন এক উদ্ভাবন যা পরিবেশ দূষণ অনেকাংশে কমাবে এবং ভবিষ্যতকে সুরক্ষা প্রদান করবে।

 

সৌমিক দাশ সৌম্য

শিক্ষার্থী, এনভায়রনমেন্টাল সায়েন্স অ্যান্ড রিসোর্চ ম্যানেজমেন্ট বিভাগ,

মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে