ঢাকা মেডিকেলে নিপা ভাইরাসের রোগী

0
53


ঢাকা মেডিকেলে নিপা ভাইরাসের রোগী

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে সাদিয়া (১৬) নামে এক স্কুল ছাত্রীকে ভর্তি করা হয়েছে। সে নিপা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে এমনটি ধারণা করছে চিকিৎসকরা। বর্তমানে ঢাকা মেডিকেলে কলেজ হাসপাতালের জরুরি বিভাগের ওয়ান স্টপ ইমার্জেন্সি সেন্টারের (ওসেক) ৪ নম্বর বিছানায় ভর্তি রয়েছে সাদিয়া।

ঢামেক হাসপাতালের জরুরি বিভাগের আবাসিক সার্জন ডা. মো. আলাউদ্দিন জানান, বৃহস্পতিবার (৩০ জানুয়ারি) রাতে সাদিয়াকে হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়। এখন ওসেক’এ ভর্তি রয়েছে। সাসপেক্ট করা হচ্ছে সে নিপা ভাইরাসে আক্রান্ত। তাকে অবজারভেশনে রাখা হয়েছে।

তার বাড়ি গাজিপুর শ্রীপুর উপজেলা চাওবন গ্রামে। তার বাবা আ. সাত্তার মালয়েশিয়া প্রবাসী। ১০ বছর ধরে তিনি মালয়েশিয়ায়। মা নাসরিন আক্তার গৃহিণী। দুই ভাই বোনের মধ্যে সাদিয়া বড়। ছোট ভাই মাহিমের বয়স ৫বছর। বাওনি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় ৯ম শ্রেণির ছাত্রী সে।

সাদিয়ার মা নাসরিন আক্তার জানান, ২বছরের বেশী সময় ধরে শ্বাসকষ্ট জনিত সমস্যায় ভুগছিলো সাদিয়া। স্কুলেও হঠাৎ অচেতন হয়ে পড়ে যেতো। খিচুনিও হতো। প্রথম পর্যায়ে সমস্যাটা অল্প আকারে দেখা দিলেও সময়ের সাথে আস্তে আস্তে বাড়তে থাকে এটি। এক পর্যায়ে প্রতিদিনই শ্বাসকষ্টে ভুগছিলো, সাথে খিচুনিও। এরপর তাকে ১৪ জানুয়ারী শহিদ তাজ উদ্দিন মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে তার এমআরআই, সিটিস্ক্যান সহ আরো বেশ কিছু পরিক্ষা নিরিক্ষা করা হয়। কিছুটা সুস্থ্য হবার পর তাকে হাসপাতাল থেকে ছেড়ে দেওয়া হয়। তখনও তেমন কিছু খেতে পারতোনা। শুধু তরল জাতীয় খাবার খেতো, তবে বারবার বমি করতো। এজন্য আবার ১৭ তারিখ তাকে সেখানে আবার নিয়ে যাওয়া হয়। ৩য় পর্যায়ে ২৭তারিখ আবার তাকে সেখানে ভর্তি করা হলে গতকাল বৃহস্পতিবার সেখান থেকে তাকে ঢাকা মেডিকেলে পাঠিয়ে দেওয়া হয়।

সাদিয়ার চাচা আ. সামাদ জানান, সাদিয়ার সম্পূর্ণ শরীরে ব্যাথা অনুভব করতো, জ্বর ছিলো, প্রায় সময়ই বমি করতো, এলার্জিও ছিলো। হাত পা বাকা হয়ে আসতো। পরে আবার ঠিক হয়ে যেতো। তিনি জানান, সাদিয়ার অবস্থা এখন ভালোনা। পরশুদিন থেকে কথাও বলতে পারছেনা। শুধু তাকিয়ে থাকে। চোখ দিয়ে পানি ঝরছে। তার রক্তের ২টি পরিক্ষা করা হয়েছে। রিপোর্ট দেখে তার কিডনিতে সমস্যা আছে বলে জানিয়েছে চিকিৎসকরা। চাচা আরো বলেন, ১৯ জানুয়ারী এক আত্মীয় সাদিয়ার জন্য খেজুরের রস নিয়ে আসে। সেই রস বাড়ির সবাই খেয়ে ছিলো। এরপর থেকে সাদিয়া আরও অসুস্থ হয়ে পড়ে।

ঢামেক হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে এসেও নানান বিড়ম্বনা পোহাতে হচ্ছে সাদিয়ার স্বজনদের, এমন অভিযোগ করা হয়েছে। ডাক্তার, নার্স, স্টাফদের জন্য মাস্ক, এপ্রোন, মাথার ক্যাপ, হ্যান্ডগোল্বস, টিস্যুও সহ ১৫শ টাকার জিনিস কিনে দিতে হয়েছে বলে জানিয়েছেন সাদিয়ার চাচা সামাদ।

ঢামেক হাসপাতাল পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল একেএম নাসির উদ্দিন জানান, মেয়েটিকে ভর্তি রেখে অবজারভ কর হচ্ছে। এক রকম আলাদা ভাবেই তাকে রেখে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। আজকে তার কিছু নমুনা রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষনা ইনস্টিটিউট (আইইডিসিআর) থেকে লোক এসে নিয়া গেছে। কাল রিপোর্ট দেওয়ার কথা। রিপোর্ট পাবার পরই জানা যাবে সে নিপা ভাইরাস আক্রান্ত হয়েছে কিনা তা নিশ্চিত হওয়া যাবে। আপাতত তাকে ওসেক এ রাখা হয়েছে তবে তাকে কেবিনে স্থানান্তরের নেওয়ার পক্রিয়া চলছে।

সাদিয়ার স্বজনদের করা অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে পরিচালক বলেন, হাসপাতালে সব কিছুই সরবারহ রয়েছে। তবে তারা যেগুলো কিনে দিয়েছে সেগুলো তাদেরকে আগামীকাল ফেরত দেওয়ার ব্যাবস্থা করা হবে।

The post ঢাকা মেডিকেলে নিপা ভাইরাসের রোগী appeared first on Bhorer Kagoj.

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে