প্রচারণা শেষ হচ্ছে কাল মধ্যরাতে

0
56


প্রচারণা শেষ হচ্ছে কাল মধ্যরাতে

ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশন নির্বাচন আগামী ১ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিত হবে। মাঝখানে আছে আর মাত্রা তিনদিন। বৃহস্পতিবার (৩০ জানুয়ারি) মধ্যরাত থেকে শেষ হচ্ছে সব ধরনের প্রচার প্রচারণা। নির্বাচনী বিধিমালা অনুযায়ী ভোটের ৩২ ঘণ্টা আগে প্রচারণায় নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। সে হিসেবে কালকেই শেষ হবে সব ধরনের প্রচারণা। ১ ফেব্রুয়ারি ভোটের দিন সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত একযোগে ঢাকার দুই সিটির সব কেন্দ্রে ভোট হবে ইভিএমে।

এদিকে, বিগত ২২ ডিসেম্বর দুই সিটির তফসিল ঘোষণা করে ইসি। এরপর ১০ জানুয়ারি প্রতীক বরাদ্দ দেবার পরে প্রচারে নেমে পড়েন প্রার্থীরা। রাজধানীর অলিতে গলিতে পোস্টারে ছেয়ে গেছে। প্রার্থীরা রাজধানীর বিভিন্ন ওয়ার্ডে পাড়া মহল্লায় গিয়ে ভোট প্রার্থনা করছেন। নানা প্রতিশ্রুতি দিচ্ছেন। অনেকে ঢাক ঢোল, নানা রকম বাদ্যযন্ত্রসহ প্রচার করে ভোটারদের দৃষ্টি আকর্ষণ করছেন। ইতোমধ্যে নিজ দলের নির্বাচনী ইশতেহারও ঘোষণা করেছেন প্রার্থীরা। চায়ের দোকান থেকে শপিং মল সর্বত্র ভোটের হাওয়া।

হাতে মাত্র দুদিন থাকায় প্রচারণায় সর্বোচ্চ সময় ব্যয় করছেন তারা। শেষবারের মতো ভোটারদের কাছে পৌঁছাতে নিয়েছেন নানা কৌশল। এবারে টিভি, রেডিও, পত্রিকায় প্রচার করা ছাড়াও ইউটিউব ও ফেসবুকে প্রচারণা হচ্ছে জোরে সোরে।

শেষ মুহূর্তে বিভিন্ন এলাকায় গণসংযোগে ব্যস্ত আওয়ামী লীগের দক্ষিণের প্রার্থী ফজলে নূর তাপস ও বিএনপির মেয়র প্রার্থীরা ইশরাক হোসেন। পিছিয়ে নেই উত্তরের আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী আতিকুল ইসলাম এবং বিএনপির তাবিথ আউয়ালও। এছাড়া অন্যসব মেয়র প্রার্থীসহ কাউন্সিলর প্রার্থীরাও শেষ মুহূর্তের প্রচারে ব্যস্ত।

এদিকে ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশন নির্বাচনের কারণে আগামী শুক্র ও শনিবার বাণিজ্যমেলা বন্ধ রাখতে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়কে নির্দেশনা দিয়েছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। মঙ্গলবার ইসির উপ-সচিব আতিয়ার রহমান স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে এ নির্দেশনা দেয়া হয়।

এছাড়া নির্বাচন উপলক্ষে সব ধরনের প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন ইসির সিনিয়র সচিব মো. আলামগীর। আবার উত্তরের নিটার্নিং কর্মকর্তা আবুল কাশেম ও দক্ষিণের রিটার্নিং কর্মকর্তা আব্দুল বাতেন জানিয়েছেন, দু সিটি ভোট উপলক্ষে মাঠে প্রায় দেড় শতাধিক ম্যাজিস্ট্রেট কাজ করছেন। প্রার্থীদের আচারণ বিধি ভাঙার অভিযোগের বিষয়ে তারা বলেন, কয়েকটি অভিযোগ এসেছিল। আমরা ম্যাজিস্ট্রেট দিয়ে তার তদন্ত করে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করেছি। মোটামুটি দু চারটি বিক্ষিপ্ত ঘটনা ছাড়া নির্বাচনী প্রচার প্রচারণা শান্তিপূর্ণভাবে চলছে। যদিও আচরণবিধি ভাঙার দুশতাধিক অভিযোগ করেছেন প্রার্থীরা।

এনএম



একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে