প্রমাণ হয়েছে ইসি অযোগ্য: মির্জা ফখরুল

0
25


প্রমাণ হয়েছে ইসি অযোগ্য: মির্জা ফখরুল

নির্বাচন কমিশনের (ইসি) অযোগ্যতার কারণেই ঢাকা সিটি করপোরেশন নির্বাচনে ভোটগ্রহণের তারিখ নিয়ে সমস্যা তৈরি হয়েছে বলে দাবি করেছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। রবিবার (১৯ জানুয়ারি) সকালে বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়ার উর রহমানের ৮৪তম জন্মবার্ষিকীতে নেতাকর্মীদের নিয়ে তার সমাধিতে শ্রদ্ধা নিবেদনের পর এসব কথা বলেন তিনি।

এ সময় ঢাকায় বিএনপি মনোনীত দুই মেয়র প্রার্থী ইশরাক হোসেন ও তাবিথ আউয়াল সহ বিএনপির সিনিয়র নেতারা তার সঙ্গে ছিলেন। ফুলের শ্রদ্ধা নিবেদনের পরে ফাতেহা পাঠ এবং প্রয়াত নেতার আত্মার মাগফেরাত কামনায় বিশেষ মোনাজাত করেন।

ফখরুল বলেন, নির্বাচন কমিশন যে অযোগ্য, ব্যর্থ এবং তারা যে আসলেও একটি নির্বাচন পরিচালনা করার যোগ্যতা রাখে না, তার প্রমাণ হচ্ছে তারা এমন একটা দিনে নির্বাচনের তারিখ নির্ধারণ করেছিল সেদিন হিন্দু সম্প্রদায়ের একটি বড় পূজা ছিল। সবচেয়ে বড় সমস্যা হচ্ছে, যেখানে পূজোগুলো হয় সেখানেই নির্বাচনের কেন্দ্রগুলো। ফলে সেখানে অবশ্যই একটা সমস্যা তৈরি হয়েছিলো। নির্বাচন কমিশনের অযোগ্যতার কারণেই এই সমস্যা সৃষ্টি হয়েছে।

ইভিএমের মাধ্যমে নির্বাচন ব্যবস্থাকে ধ্বংস করে দেয়ার অপকৌশল বলে মন্তব্য করে তিনি বলেন, ইভিএমের মাধ্যমে জনগণের রায় কখনও সামনে আসবে না। এর ব্যবহার হচ্ছে একটা ত্রুটিপূর্ণ ব্যবস্থা। বিশ্বের কোনও দেশই এই ব্যবস্থাকে ত্রুটিহীন সিস্টেম বলেনি।

জিয়াউর রহমানের নেতৃত্বে বহুদলীয় গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা হয়েছিল বলে দাবি করে তিনি ফখরুল বলেন, তিনি সংবাদপত্রের স্বাধীনতা ফিরিয়ে দিয়েছেন এবং মুক্ত একটি সমাজ প্রতিষ্ঠার কাজ শুরু করেছিলেন। জিয়াউর রহমানের নেতৃত্বেই দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নের ভিত্তি গড়ে উঠেছিল। শেষ পর্যন্ত স্বল্প সময়ে তিনি এদেশের মানুষের মধ্যে একটি স্থায়ী আসন গড়ে নিয়েছিলেন। ফলে তার প্রতিষ্ঠিত বিএনপি এখনও দেশের বৃহৎ রাজনৈতিক দল হয়ে নেতৃত্ব দিচ্ছে, স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্ব রক্ষা করছে, গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের আন্দোলন করছে।

মির্জা ফখরুল বলেন, দুর্ভাগ্য যে যখন আমরা জিয়াউর রহমানের জন্মবার্ষিকী পালন করছি, তখন তার যোগ্য সহধর্মিণীকে আওয়ামী শাসক গোষ্ঠী অন্যায়ভাবে আটকে রেখেছে। ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানকে বিদেশে নির্বাসিত করে রেখেছে। হাজার হাজার নেতাকর্মীর নামে মিথ্যা মামলা দিয়েছে, গ্রেফতার করেছে, খুন ও গুম করেছে। দেশকে অগণতান্ত্রিক স্বৈরাচারী রাষ্ট্র হিসেবে প্রতিষ্ঠা করেছে।

আজকে আওয়ামী লীগ একদলীয় শাসন ব্যবস্থা প্রবর্তন করতে চায় বলে অভিযোগ করে বিএনপি মহাসচিব বলেন, সেই জন্য তারা নির্যাতন, অত্যাচারের স্টিমরোলার চালিয়ে যাচ্ছে। ফলে আমরা শপথ নিয়েছি, যে কোনও ত্যাগের বিনিময়ে হলেও দেশকে রক্ষা করবো এবং গণতন্ত্রকে মুক্ত করবো। খালেদা জিয়াকে মুক্ত করে জিয়াউর রহমানের আর্দশ অনুযায়ী বহুদলীয় গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা করবো।

জিয়াউর রহমানের জন্মদিনে বিএনপির কর্মসূচি
দলের প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের ৮৪ তম জন্মদিন উপলক্ষে বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করেছে বিএনপি। এ উপলক্ষ্যে ডক্টরস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ-ড্যাব নয়া পল্টনে কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের নিচতলা দিনব্যাপী বিনামূল্যে স্বাস্থ্যসেবা দেয়া হয়। বিকালে ইঞ্জিনিয়ার্স ইন্সটিটিউশন মিলনায়তনে দলটির পক্ষ থেকে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে সিনিয়র নেতারা জিয়ারউর রহমানের জীবনদর্শন নিয়ে বক্তব্য রাখেন। এছাড়াও দিনটি উপলক্ষে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে ভোরে দলীয় পতাকা উত্তোলন এবং সংবাদপত্রে বিশেষ ক্রোড়পত্র প্রকাশ করা হয়।

এসএইচ



একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে