সরিষাবাড়ীতে মামলাবাজ ইদ্রিস এর আতঙ্কে এলাকাবাসী

0
179


ইসমাইল হোসেন সরিষাবাড়ী (জামালপুর) প্রতিনিধিঃ
জামালপুরের সরিষাবাড়ী উপজেলা ৩নং ডোয়াইল ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ডের পরমানন্দপুর গ্রামের মৃত হোসেন আলীর ছেলে আব্দুল ওয়াদুদ(৬১) সাথে আপন ছোট ভাই মোহাম্মদ ইদ্রিস আলী(৫৯) এর দীর্ঘদিন যাবৎ পিতার পৈত্রিক সম্পত্তির বন্টন নিয়ে বিবাদ চলে আসছিল। জানা যায়, উক্ত বিবাদটি অত্র এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ সামাজিক ভাবে মীমাংসা করার লক্ষ্যে কয়েক দফা সালিশ করেছেন।

কিন্তু অসামাজিক ইদ্রিস আলী সামাজিক বিচারিক ব্যবস্থাকে উপেক্ষা করে উল্টো ২০/১০/১৯ ইং তারিখে সরিষাবাড়ী থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। যার মামলা নং -১৫। এদিকে গ্রামবাসী সূত্রে জানা যায়,ইদ্রিস আলী একজন মামলাবাজ,কলহপ্রিয় ব্যক্তি। তার অন্যায়ের যে প্রতিবাদ করে, তাকেই সে আসামি করে মামলা দেয়। তার এমন অমানবিক আচরণে গ্রামের অনেক বর্ষিয়ান বয়োজ্যেষ্ঠরা এখন আতঙ্কে। গ্রামের এক প্রবীণ বৃদ্ধ মোঃ জালাল উদ্দিন(৮০) বলেন, আমি সত্য কথা বলতে গিয়ে মামলার আসামি হয়েছি। এই ইদ্রিস আলী তার পিতার পৈত্রিক সম্পত্তি থেকে নিজের ইচ্ছেমতো বন্টন করে নিয়েও আজ বড় ভাই ওয়াদুদ এর সাথে পুনরায় জমি সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে বিবাদ সৃষ্টি করেছেন। জানা গেছে, ইদ্রিস আলী তার বসত বাড়ির কিছুঅংশ বেদখলের অভিযোগ এনে বিজ্ঞ আদালতে ১৪৪ ধারা একটি মামলা দায়ের করেন।যার মামলা নং – ২৬৭/১৯। বর্তমানে মামলাটি বিচারাধীন রয়েছে।

কিন্তু প্রত্যক্ষ সূত্রে দেখা গেছে, ইদ্রিস আলীর বসতবাড়ি চারদিকেই প্রাচীরে ঘেরা। সেখানে বেদখলে কোন অবকাশ নেই। মৃত আব্দুল জব্বারের ছেলে ইউসুফ আলী জানান, বিগত ২০/১০/১৯ ইং তারিখে সরিষাবাড়ী থানায় দায়েরকৃত মামলাটির সকল আসামিগণ ২২/১০/১৯ইং তারিখে বিজ্ঞ আমলী আদালতে হাজির হইলে বিজ্ঞ আদালত সকল আসামিগণকে অনুকম্পায় অস্থায়ী জামিন মঞ্জুর করেন। এতে ইদ্রিস আলী আরো ঈর্ষান্বিত হয়ে নতুন আরেকটি মিথ্যা মামলা দায়ের করেন। আর এ মামলার এজাহারে বলা হয়, আসামিগণ অস্থায়ী জামিনপ্রাপ্ত হইয়া অতি উৎসাহে বাদিকে মারপিট খুন জখমের ভয় দেখিয়ে মামলা প্রত্যাহারের হুমকি প্রদান করেন বাড়ি যাওয়ার প্রাক্কালে এবং একপর্যায়ে তাদেরকে বেদম মারপিট করেন বলে উল্লেখ্য করেন। কিন্তু উক্ত মামলাটি সম্পূর্ণ মিথ্যা ভিত্তিহীন বলে জানান একই গ্রামের মৃত জয়েন উদ্দিনের ছেলে মোঃ মজিবুর রহমান(৭০)। কারণ এ মামলার সাক্ষীগণের স্থায়ী কোন অস্তিত্ব খুঁজে পাওয়া যায়নি এলাকা তথা ডোয়াইল ইউনিয়ন পরিষদে। এদিকে ইদ্রিস আলী একের পর এক মামলা করছেন এবং গ্রামের বর্ষিয়ান মুরুব্বীদের মামলায় জড়াচ্ছেন বলে অভিযোগ তুলেছেন গ্রাম্য লোকজন। উক্ত বিষয়ে ইদ্রিস আলীর সাথে যোগাযোগ করতে চাইলে তাকে মুঠোফোনে পাওয়া যায়নি।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে