স্পিকারের সাথে থাইল্যান্ডের রাষ্ট্রদূতের সৌজন্য সাক্ষাৎ

0
37


স্পিকারের সাথে থাইল্যান্ডের রাষ্ট্রদূতের সৌজন্য সাক্ষাৎ

বাংলাদেশ জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী এমপি-র সাথে বাংলাদেশে নিযুক্ত থাইল্যান্ডের রাষ্ট্রদূত অরুনরাং ফতুং হামফ্রেইস রবিবার (১৫ মার্চ) তার কার্যালয়ে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন। সাক্ষাৎকালে তারা বাংলাদেশ থাইল্যান্ড দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্যিক সম্পর্ক, নারীর ক্ষমতায়ন, দু’দেশের পারস্পরিক পর্যটন সম্ভাবনা, উভয় দেশের পারস্পরিক সংসদ সফরের মাধ্যমে অভিজ্ঞতা অর্জন এবং টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে বাংলাদেশের এগিয়ে যাওয়া নিয়ে আলোচনা করেন।

স্পিকার বলেন, থাইল্যান্ডের সাথে বাংলাদেশের বন্ধুত্বের সম্পর্ক দীর্ঘদিনের। এ সম্পর্ক আজ অত্যন্ত সুদৃঢ়। ভবিষ্যতে এ সম্পর্ক আরও জোরদার হবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন। এসময় স্পিকার সংসদীয় মৈত্রী গ্রুপ গঠনের মাধ্যমে দু’দেশের সংসদীয় সম্পর্ক জোরদারকরার উপর গুরুত্বারোপ করেন। রাষ্ট্রদূত অরুনরাং ফতুং হামফ্রেইস বলেন, উভয় দেশের উন্নয়ন সংক্রান্ত অভিজ্ঞতা বিনিময়ের জন্য পারস্পরিক সফর গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারে। বাংলাদেশের সাথে দক্ষিণ এশিয়া ও দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ার মুক্ত বাণিজ্যের সম্প্রসারণে থাইল্যান্ড সহযোগিতা করবে বলে উল্লেখ করেন রাষ্ট্রদূত।

রাষ্ট্রদূত হামফ্রেইস এসময় নারীর ক্ষমতায়নে বাংলাদেশের প্রশংসা করলে ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী বলেন, স্পিকারসহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পদে নারীদের পদায়ন এবং উন্নয়নের মূলস্রোতে সম্পৃক্ত করাসহ নারী অগ্রযাত্রায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। ২০০৯ সাল থেকে নারীশিক্ষার সম্প্রসারণ, প্রশিক্ষণের মাধ্যমে নারীদের দক্ষতা বৃদ্ধি, বাল্যবিবাহ রোধ, মাতৃমৃত্যু ও শিশুমৃত্যুর হার হ্রাসে সরকার কাজ করে যাচ্ছে। বিশ্বের সকল নারীদের উচ্চশিক্ষা অর্জনের স্বার্থে দেশে এশিয়ান উইনিভার্সিটি ফর উইমেন প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে বলে উল্লেখ করেন স্পিকার।

এসএইচ



একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে