আমাদের একটাই উদ্দেশ্য মানুষকে বাঁচাতে হবে

0
24


আমাদের একটাই উদ্দেশ্য মানুষকে বাঁচাতে হবে

করোনা ভাইরাস নিয়ে রাজনীতি করার কিছু নেই মন্তব্য করে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল-আলম হানিফ বলেছেন, করোনা ভাইরাস পুরো বিশ্বব্যাপী উদ্ভূত একটি বিশেষ পরিস্থিতি। এটি বৈশ্বিক সংকট। এ দুঃসময়ে যে যার অবস্থান থেকে কাজ করতে পারেন। কেউ যদি মনে করেন, করোনা ভাইরাসের কারণে তার কিছু দায়বদ্ধতা আছে, তবে তিনি কিছু করতে পারেন। সব কিছুতেই রাজনীতি খোঁজার সময় এখন নয়। এখন আমাদের সবার একটাই উদ্দেশ্য- দেশের মানুষকে বাঁচাতে হবে। সাধ্যমতো মানুষের পাশে দাঁড়াতে হবে। গতকাল বুধবার টেলিফোনে ভোরের কাগজকে দেয়া সাক্ষাৎকারে তিনি এসব কথা বলেন।

করোনা পরিস্থিতিতে হতদরিদ্র ঘরবন্দি মানুষের কাছে সরকারের পাশাপাশি ব্যক্তিগত উদ্যোগেও অনেকেই ত্রাণসামগ্রী পৌঁছে দিচ্ছেন। চাল, ডাল, আলু, সাবান, হ্যান্ড স্যানিটাইজার, মাস্কসহ প্রয়োজনীয় ওষুধ বিতরণ করছেন। তবে দরিদ্র জনগোষ্ঠীর মধ্যে বিতরণ করা ত্রাণসামগ্রী নিয়ে প্রচার করার কিছু নেই বলে মন্তব্য করেন কুষ্টিয়া-৩ আসনের সংসদ সদস্য মাহবুব-উল-আলম হানিফ। তিনি বলেন, ত্রাণ বিতরণ নিয়ে কোনো কথা বলতে চাই না। কারণ একজন জনপ্রতিনিধি হিসেবেই শুধু নয়, একজন মানুষ হিসেবে এলাকার বিপন্ন মানুষের পাশে দাঁড়ানো আমার দায়িত্ব এবং কর্তব্য। এটাই স্বাভাবিক। এটা নিয়ে ঘটা করে বলার কিছু নেই। আমি বলতেও চাই না। বিশ্ব ব্যাপী এই ভয়ংকর সময়ে আমি আমার সাধ্যমতো এলাকার মানুষের পাশে দাঁড়াতে সর্বোচ্চ চেষ্টা করছি। এতে কোনো কৃতিত্ব দেখছি না।

করোনা সংকটে সরকারি দল আওয়ামী লীগের ভ‚মিকা যথেষ্ট কি না? এমন প্রশ্নের জবাবে দলের এই যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বলেন, দলীয় প্রধান এবং সরকারপ্রধান শেখ হাসিনা সবসময় দরিদ্র মানুষের মুখে হাসি ফোটাতে কাজ করছেন। সরকারপ্রধান হিসেবে করোনা সংকটেও দরিদ্রদের জন্য উদ্যোগ নিয়েছেন। শ্রমজীবী ও ‘দিন আনি দিন খাই’ মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন।

আওয়ামী লীগ সরকার দরিদ্রদের জন্য কাজ করছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দরিদ্রদের জন্য প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা করেছেন। প্রত্যেকের বাড়ি বাড়ি খাদ্যসামগ্রী পৌঁছে যাবে। হানিফ বলেন, করোনা সংকট মোকাবিলার জন্য মানুষের শুধু একটাই দায়িত্ব- ঘরে থাকা। সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে নিজেদের এবং নিজের পরিবারের সদস্যদের সুরক্ষিত রাখা। সরকার ইতোমধ্যেই সাধারণ ছুটি ঘোষণা করেছে এবং এই ছুটি আবার বাড়িয়ে দেয়া হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী সংকট মোকাবিলায় দিনরাত নিরলস কাজ করছেন।

করোনা পরিস্থিতিতে সারাদেশ কার্যত লকডাউন হলেও অনেক ক্ষেত্রে লকডাউন ভেঙে বাইরে বের হচ্ছে মানুষ। অনেক ক্ষেত্রে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর নির্দেশও উপেক্ষিত হচ্ছে কোথাও কোথাও। এক্ষেত্রে সরকারের করণীয় কী? এমন প্রশ্নের উত্তরের মাহবুব-উল-আলম হানিফ বলেন, সরকারের পক্ষ থেকে বারবার মানুষকে সচেতনতার কথা বলা হচ্ছে। ঘরে থাকার কথা বলা হচ্ছে। কিন্তু অনেকেই সরকারের এই নির্দেশ মানছেন আবার অনেকেই এই নির্দেশ মানছেন না। যারা মানছেন না, তারা কি অসচেতনতার কারণে মানছেন না নাকি ইচ্ছে করেই মানছেন না- এটি আমার বোধগম্য নয়। তবে এত অনুরোধ, এত প্রচার-প্রচারণার পরেও যারা সচেতন হচ্ছেন না, ঘরে থাকছেন না, অকারণে ঘরের বাইরে বের হচ্ছেন- তাদের ক্ষেত্রে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কঠোর হওয়া ছাড়া আর কোনো উপায় দেখছি না। এক্ষেত্রে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে আরো কঠোর হয়ে সচেতনতা মানতে এবং জনগণকে ঘরে থাকতে বাধ্য করতে হবে। করোনা ঠেকাতে জনগণের ঘরে থাকার আর কোনো বিকল্প নেই।

এসআর



একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে