সখীপুরে পরকীয়ায় বাঁধা দেওয়া চাচাতো ভাইকে কুপিয়ে যখম

0
52

এম সাইফুল ইসলাম শাফলু : টাঙ্গাইলের সখীপুরে পরকীয়ায় বাঁধা দেওয়ায় বোন ও তার প্রেমিকারা মিলে দা দিয়ে এলোপাথারী কুপিয়ে গুরুতর আহত করেছে চাচাতো ভাই ছাব্বির হোসেন রিপনকে (৩২)।শনিবার দিবাগত রাত দেড়টার দিকে উপজেলার বেড়বাড়ী নামাপাড়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

গুরুতর আহত ছাব্বির হোসেন রিপনকে রাতে সখীপুর উপজেলা স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। অবস্থার অবনতি হলে রাতেই তাকে টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়। তার শরীরে ২৬টি ক্ষতে ৬২টি শেলাই করা হয়েছে। চিকিৎসকরা জানিয়েছে রিপনের অবস্থা ভাল নয়। তার শরীর থেকে প্রচুর রক্তক্ষরণ হয়েছে। এখনো জ্ঞান ফিরেনি। এ ঘটনায় অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে অভিযোগ করেছেন আহত রিপনের বাবা মো. খোরছু মিয়া। এদিকে রীমা বেগমের দাবি রিপন জোরপূর্বক তাকে ধর্ষণের চেষ্টা করলে সে প্রাণ রক্ষায় নিজেই তাকে দা দিয়ে কুপিয়েছে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, বেড়বাড়ী নামাপাড়া গ্রামের লাল মিয়ার মেয়ে প্রবাসী আসাদুজ্জামান লিপুর স্ত্রী এক সন্তানেন জননী রীমা বেগম (২৫) এর সঙ্গে পাশ্ববর্তী চাকদহ গ্রামের হিন্দু সম্প্রদায়ের উদয় কুমারের ছেলে উত্তম কুমার (২৫) এবং একই গ্রামের ভবেষ সরকারের ছেলে আশিষ সরকারের (২২) পরকীয়া সম্পর্ক গড়ে ওঠে। রীমার চাচাতো ভাই ছাব্বির হোসেন রিপন বিষয়টি টের পেয়ে বেশ কয়েকবার রিমা ও তার ওই দুই প্রেমিককে শাসিয়ে দেন। নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে শনিবার রাত দেড়টার দিকে রিমার ওই দুই প্রেমিক উত্তম সরকার ও আশিষ সরকার রিমার ঘরে ঢুকলে রিপন টের পেয়ে পিছু নেয়। এক পর্যায়ে তাদেরকে হাতে নাতে ধরে ফেললে তারা উপর্যুপরি রিপনকে দা দিয়ে রেখে পালিয়ে যায়। পরে রিপনকে মুমূর্ষু অবস্থায় রাতেই সখীপুর উপজেলা স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সে পরে টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে নেওয়া হয়।

আহত রিপনের বাবা মামলার বাদী মো. খোরছু মিয়া -রিপনের অবস্থা ভাল নয় বলে জানান । তিনি অভিযুক্তদের দ্রুত গ্রেফতারের দাবি জানান।

স্থানীয় ইউপি সদস্য জালাল উদ্দিন জালু ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই সুকান্ত রায় বলেন- লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। তদন্তপূর্বক আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে