নৈসর্গিক সুন্দর্যে ভরপুর বাসাইলের বাসুলিয়া

0
26

নিউজ টাঙ্গাইল ডেস্ক:নৈসর্গিক সুন্দর্যে ভরপুর টাঙ্গাইলের বাসাইল উপজেলার বাসুলিয়ায়  ভ্রমণপিপাসুদের আগমনে মুখরিত হয়ে ওঠেছে। উপজেলার পূর্বাঞ্চলে কুমারজানী, ঢংপাড়া, মিরিকপুর ও হান্দুলী গ্রাম বেষ্টিত বর্ষায় প্রকৃতির দৃশ্য যেনো ছবির মতো পটে আঁকা। প্রকৃতি যেনো হাতছানি দিয়ে ডাকছে! কী বৃষ্টি কী রোদ, বাঁধা উপেক্ষা করেই ছুটছেন সবাই।

সারা বছর এই পর্যটন এলাকায় দর্শকদের ভীর কম থাকলেও বর্ষায় যেন প্রকৃতির এক আদর মাখা সুভহিত রুপ মেলে ধরে এই বাসুলিয়াতে। স্পটগুলো শিক্ষার্থী, সামাজিক, সাংস্কৃতিক ব্যক্তিদের সৌন্দর্য পিপাসু ও প্রকৃতি প্রেমীদের পদচারণায় মুখরিত থাকে। তবে ঈদুল ফিতর ও ঈদুল আযহায় দৃষ্টি নন্দন স্থান গুলো মানুষের মিলনমেলায় পরিণত হয়।

এবারও তার ব্যাতিক্রম হয়নি। এখানে আসা পর্যটকদের কাছে সবচেয়ে আকর্ষণীয় হলো বিলের মাঝখানের হিজল খাছ। এখানে কেউ মোটরসাইকেলে, কেউ সিএনজি, কেউ আবার কেউ ইঞ্জিন চালিত নৌকায় আসছেন।

বাসুলিয়ার  নয়নাভিরাম, নৈসর্গিক প্রাকৃতিক সৌন্দর্যে মুগ্ধ করে মানুষকে। অনেকেই ঐসব স্থানে গিয়ে তুলছেন সেল্ফি আর অনেকেই একান্তে বসে আছেন, অনেকেই বসিয়েছেন আড্ডা।

স্থানীয় এলাকাবাসী জানান, সবার আকর্ষণ বাসুলিয়ার হিজলগাছ । দূর দূরান্ত থেকে আসা পর্যটকরা উপভোগ করছেন প্রাকৃতিক এসব সৌন্দর্য।

বেড়াতে আসা আলমগীর , আওলাদ , লতিফ , মেহেদী হাসান সহ অনেকেই জানান, এখানে যোগাযোগ ব্যবস্থার ও থাকা-খাওয়ার ভালো ব্যবস্থা না থাকায় পর্যটকদের কষ্টের হচ্ছে।

মধুপুরের সাংবাদিক নজরুল ইসলাম জানান, ঈদে ও ছুটির দিনে এ উপজেলার প্রাকৃতিক সৌর্ন্দয়ের টানে হাজার হাজার পর্যটক আসেন। বাসুলিয়া উপজেলায় আকর্ষণীয় পর্যটন কেন্দ্র স্থাপনের উপযোগী স্থান। এখানে পর্যটন কেন্দ্র স্থাপন করা এখন সময়ের দাবি। পর্যটন কেন্দ্র স্থাপন হলে বাসাইরের স্থানীয় জনসাধারণের জীবন যাত্রার মান উন্নয়নের সুযোগ ও স্থানীয় বেকার যুবকদের কাজের সুযোগ সৃষ্টি হবে।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে