মির্জাপুরে বংশাই নদী ভাঙ্গন পরিদর্শনে পানি সম্পদ উপ-মন্ত্রী শামীম

0
119

মির্জাপুর প্রতিনিধি: টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে বংশাই নদী ভাঙ্গন ও বুধিরপাড়া-কেশবপুর স্লোপ প্রতিরক্ষামূলক কাজ পরিদর্শন করেছেন পানি সম্পদ উপ-মন্ত্রী এ কে এম এনামুল হক শামীম। সোমবার সকালে তিনি উপজেলার বন্যাকবলিত বংশাই নদী, ফতেপুর, সুতানলিসহ বেশ কয়েকটি এলাকা পরিদর্শন করেন। এর আগে তিনি মির্জাপুর উপজেলা চত্বরে পৌছিয়ে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পন করেন।

পরে বন্যা কবলিত এলাকা পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে বলেন, মির্জাপুরে বন্যা কবলিত এলাকায় ১১৫ কোটি টাকার ডিপিপি প্রকল্প প্রণয়ন করা হয়েছে। সারাদেশের ঝুকিপূর্ণ এলাকাগুলো চিহ্নিত করে আগাম ব্যবস্থা নেয়ার ফলে এবার গত বছরগুলোর চেয়ে নদীভাঙ্গনের ভয়াবহতা কমেছে। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, অবৈধভাবে নদী থেকে বালু উত্তোলনকারীদের কাউকেই ছাড় দেয়া হবেনা। সারাদেশে সরকার ৬৫০ টি এলাকাকে বন্যা কবলিত এলাকা হিসেবে চিহ্নিত করেছে যার মধ্যে ৬৫টি অধিক ঝুঁকি সম্পন্ন বলে জানান তিনি।

সে সময় মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা-কর্মচারি ছাড়াও টাঙ্গাইল-০৭ সাংসদ বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ¦ মো. একাব্বর হোসেন, জেলা প্রশাসক মো. শহীদুল ইসলাম, পুলিশ সুপার সঞ্জিত কুমার রায়, পানি উন্নয়ন বোর্ডের প্রধান প্রকৌশলী উকিল বিশ্বাস, প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা সিরাজুল ইসলাম, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মীর এনায়েত হোসেন মন্টু, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আবদুল মালেক, সহকারি কমিশনার (ভূমি) মঈনুল হক, মির্জাপুর থানা অফিসার ইনচার্জ মো. সায়েদুর রহমান, টাঙ্গাইল জেলা পরিষদের সদস্য সাইদুর রহমান খান বাবুল, উপজেলা আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক মীর শরীফ মাহমুদ, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান আজহারুল ইসলাম, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান মীর্জা শামীমা আক্তার শিফা, লতিফপুর ইউপি চেয়ারম্যান জাকির হোসেন, ফতেপুর ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুর রউফ, বিআরডিবির চেয়ারম্যান মোহাম্মদ জহিরুল হক, ভাইস চেয়ারম্যান আবিদ হোসেন শান্ত ও উপজেলা ছাত্রলীগ সভাপতি সাদ্দাম, সাধারণ সম্পাদক সিয়াম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে